সীমিত পরিসরে চালু পোশাক কারখানা, বাকিগুলো খুলবে ধাপে ধাপে

সীমিত পরিসরে চালু পোশাক কারখানা, বাকিগুলো খুলবে ধাপে ধাপে

কোভিড-১৯ এ সাধারণ ছুটির মধ্যেই রোববার থেকে সীমিত পরিসরে চালু হয়েছে পোশাক কারখানা। বাকি কারখানাগুলো খুলবে ধাপে ধাপে। বিজিএমইএ ও বিকেএমইএ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
কারখানা খোলায় আজ সাভার, আশুলিয়া, গাজীপুরসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে শ্রমিকদের কাজে যোগ দেয়ার খবর পাওয়া গেছে। কোথাও কোখাও বকেয়া বেতন দাবিতে শ্রমিক বিক্ষোভের খবরও পাওয়া গেছে। অনেক কারখানায় শ্রমিকরা করোনার মধ্যে কাজে যোগ দেয়ার নোটিশ দেয়ায় প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

এর আগে মহামারী করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে সরকারি সাধারণ ছুটির সঙ্গে সমন্বয় করে দেশের সব পোশাক কারখানা ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করে পোশাক মালিকদের বড় দুটি সংগঠন বাংলাদেশ তৈরি পোশাক প্রস্তুত ও রফতানিকারক সমিতি (বিজিএমইএ) এবং বাংলাদেশ নিটওয়্যার ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিকেএমইএ)।
এ কারণে বহু অর্ডার বাতিল হয়ে গেছে। গার্মেন্ট শিল্পের অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে গেছে বলে দাবি শিল্প সংশ্লিষ্টদের। তবে বিশ্বব্যাপী মহামারীর মধ্যেও অনেক পোশাক কারখানার ক্রয়াদেশ বহাল রয়েছে। এসব অর্ডার যেন বাতিল না হয় তাই কারখানা খুলে দেয়ার জন্য চাপ দিচ্ছে পোশাক কারখানার মালিকরা। বিষয়টি বিবেচনায় সরকারের অনুমতিতে প্রথমে সীমিত আকারে চালু থাকবে পোশাক কারখানা। পরে ধাপে ধাপে সব কারখানা খুলে দেয়া হবে।
শনিবার এফবিসিসিআই আয়োজিত এক আলোচনা সভায় বিজিএমইএ সভাপতি ড. রুবানা হক বলেন, পোশাকশিল্পের ৮৬৫টি কারখানা খুলে দেয়ার দাবি আছে। এ পর্যন্ত তিন বিলিয়ন ডলারের বেশি অর্ডার বাতিল হয়েছে। আমাদের ওপর কারখানা খুলে দেয়ার চাপ আছে। অনেকের অর্ডার আছে। এলাকাভিত্তিক সিদ্ধান্ত নিয়ে দিনক্ষণ বেধে, সীমিত আকারে, স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করে কারখানা খুলে দেয়ার পদক্ষেপ নেয়ার জন্য তিনি সবার সহযোগিতা চান।
বিষয়টি বিবেচনা নিয়ে ধাপে ধাপে পোশাক কারখানা চালু বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেন শীর্ষ ব্যবসায়ী নেতারা। এরপর ২৫ এপ্রিল সন্ধ্যায় পোশাক কারখানা খোলার বিষয়টি অবহিত করে বিজিএমইএ শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিবকে চিঠি পাঠায়। একই সিদ্ধান্ত নেয় পোশাক শিল্প মালিকদের অপর সংগঠন বিকেএমইএ। এরপর শ্রম মন্ত্রণালয় স্বাস্থ্যবিধি মেনে কারখানা চালু করার জন্য একটি নির্দেশনা জারি করে।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, তিন ধাপে কারখানা খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পোশাক মালিকদের সংগঠনগুলো। প্রথম পর্যায়ে রোববার ও সোমবার ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকা ছাড়াও নারায়ণগঞ্জ এলাকার নিটিং, ডায়িং ও স্যাম্পলিংয়ের কারখানা চালু হবে। ২৮ থেকে ৩০ এপ্রিল আশুলিয়া, সাভার, ধামরাই ও মানিকগঞ্জের কারখানা, ৩০ এপ্রিল রূপগঞ্জ, নরসিংদী, কাঁচপুর এলাকা, ২ ও ৩ মে গাজীপুর ও ময়মনসিংহ এলাকার কারখানা চালু করা হবে। কারখানা খোলার ক্ষেত্রে শুরুতে উৎপাদন ক্ষমতার ৩০ শতাংশ চালু করা হবে। পর্যায়ক্রমে তা বাড়ানো হবে। তবে এখন কোনো শ্রমিক ঢাকার বাইরে থেকে নিয়ে আসতে পারবে না কারখানার মালিকরা।
এদিকে কারখানা খোলার খবরে অনেক শ্রমিক কর্মস্থলে ফিরতে শুরু করেছেন। গণপরিবহন বন্ধ থাকায় কেউ হেঁটে, আবার কেউ অতিরিক্ত ভাড়ায় রিকশা ও ভ্যানে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় প্রবেশ করছেন শ্রমিকরা।
প্রসঙ্গত, করোনা ভাইরাসের কারণে কয়েক দফা বাড়ানোর পর সাধারণ ছুটি ৫ মে পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়েছে। এ সময় পর্যন্ত বন্ধ থাকবে গণপরিবহনও। কারখানা খুলে দেয়ায় চাকরি বাঁচাতে শ্রমিকরা রাস্তায় ছুটছেন। অনেক কারখানা থেকে ফোন করে শ্রমিকদের কাজে যোগ দিতে বলা হচ্ছে।

Leave a Reply