আবার মুখরিত কমলাপুর স্টেশন

কমলাপুর

কমলাপুর রেলস্টেশন যাত্রীদের পদচারণায় ফিরে পেয়েছে তার জীবন। রবিবার (১৮ আগস্ট) সকালে ১৩ জোড়া আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল শুরু করার পরে বিকেলে স্টেশনটির চেহারা পরিবর্তন হয়েছে। যাত্রীরা জানান, প্রত্যেকে হাইজিনের নিয়ম মেনে ট্রেনে ভ্রমণ করছেন। এছাড়া ট্রেনও সময়মতো চলছে। এছাড়া ট্রেনের ভাড়া বাড়ানো না হওয়ায় যাত্রীদের মধ্যে স্বস্তি ছিল।

করোনার পরিস্থিতির কারণে ২৪ শে মার্চ থেকে যাত্রী ট্রেনগুলি স্থগিত করা হয়েছে। এর পরে কমলাপুর রেলস্টেশন প্রায় নির্জন ছিল।

চট্টগ্রাম থেকে আসা দু’জন যাত্রী জাগো নিউজকে জানান, ট্রেনটি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছিল। পাশাপাশি ট্রেনও যথাসময়ে পৌঁছেছিল।

মাল ট্রেনগুলি করোনার সময়কালে চলতে থাকে। ৩১ শে মে, প্রথম পর্যায়ে আট জোড়া আন্তঃনগর ট্রেন চালু করা হয়েছিল। ৩ রা জুন দ্বিতীয় পর্যায়ে আন্তঃনগর ট্রেনের আরও ১১ টি জোড়া যুক্ত করা হয়েছে। তবে কিছুক্ষণ পরে যাত্রী সংকটের কারণে দুই জোড়া ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দেয়। এরপরে আজ, রবিবার থেকে 12 জোড়া আন্তঃনগর এবং এক জোড়া যাত্রী ট্রেন সহ মোট 13 জোড়া ট্রেন চলাচল শুরু করেছে। রেলপথ পর্যায়ক্রমে সব রুটের আন্তঃনগর ট্রেন চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

কমলাপুর- (২)

রেল কর্তৃপক্ষের মতে আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট অনলাইনে এবং মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে আগের মতো বিক্রি করা হবে। আন্তঃনগর ট্রেনের অগ্রিম টিকিটগুলি প্রস্থানের দিন সহ পাঁচ দিন আগে জারি করা যেতে পারে। যাত্রীদের সামাজিক ও শারীরিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে কোচের সামর্থ্যের ৫০ শতাংশ টিকিট বিক্রি হবে। আন্তঃনগর ট্রেনগুলির জন্য সকল ধরণের স্থায়ী টিকিট বন্ধ থাকবে।

বাংলাদেশ রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে মোট ১ pairs জোড়া ট্রেন চলছে। আজ রেলের বহরে আরও 13 টি জোড়া ট্রেন যুক্ত করা হয়েছে। সব মিলিয়ে এখন চলমান ট্রেনের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে 30 জোড়া।

এইচএস / এনএফ / পিআর