আ.লীগ নেতাকে হত্যাচেষ্টা, স্ত্রী ও পরকীয়া প্রেমিক কারাগারে

মিলি

মাদারীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ইলিয়াস আহমেদ হাওলাদারের স্ত্রী মিলি আক্তার (৪২) এবং তার প্রবাসী প্রেমিক সাইদুর রহমানকে (২৩) হত্যার চেষ্টার জন্য আদালত কারাগারে প্রেরণ করেছে।

শনিবার (২৯ আগস্ট) দুপুরে মাদারীপুর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে তাদের হাজির করা হলে বিচারক ফয়সাল আল-মামুন তাদের কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

এর আগে শুক্রবার (২ 26 আগস্ট) রাতে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) তাকে Dhakaাকার মিরপুর -২ এলাকায় মিলির এক আত্মীয়ের বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে। মিলির বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কের সাইদুর রহমান জাহিদকেও সে সময় বিভিন্ন জায়গা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। মিলি ও জাহিদকে পরে মাদারীপুর পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে নিয়ে আসা হয়। গ্রেপ্তার সাইদুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র। তার বাড়ি চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ।

পুলিশ জানিয়েছে, ২০ আগস্ট সকালে তিনি যখন ঘুমাচ্ছিলেন, তার স্ত্রী মিলি মশলা মাখনের মশলা দিয়ে ইলিয়াস আহমেদকে মাথায় আঘাত করেছিলেন। গুরুতর অবস্থায় তাকে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে Dhakaাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। ইলিয়াসকে পরে Dhakaাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছিল।

২৩ শে আগস্ট ইলিয়াস নিজে সদর মডেল থানায় হত্যার চেষ্টা করে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় স্ত্রী মিলির নাম ছিল একমাত্র আসামি এবং অন্য পাঁচজন অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তির নাম।

মাদারীপুর জেলা গোয়েন্দা পুলিশ পরিদর্শক রাজিব হোসেন জানান, মিলিকে Dhakaাকার মিরপুর -২ এর এক আত্মীয়ের বাসা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এমন সময় সাইদুর সেখানে মিলির সাথে দেখা করতে আসে। সাইদুরকেও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে মিলির সাথে সাইদুরের প্রেমের সম্পর্ক প্রকাশ পায়। দুজনই আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। পরে আদালত তাদের কারাগারে প্রেরণ করেন।

মাদারীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবদুল হান্নান মিয়া জানান, স্ত্রী মিলির হাতে ইলিয়াসকে পাথর দিয়ে আঘাত করা হয়েছিল। গুরুতর অবস্থায় তাকে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে তিনি হত্যার চেষ্টা করে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় স্ত্রী মিলির নাম ছিল একমাত্র আসামি এবং অন্য পাঁচজন অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তির নাম। মিলি এবং তার প্রেমিককে শুক্রবার গ্রেপ্তার করে আদালত জেল হাজতে প্রেরণ করেছে।

একেএম নাসিরুল হক / এএম / এমএস