নো-বলে ফাওয়াদের আউট নিয়ে বিতর্ক চরমে

FAWAD1

11 বছর পর টেস্টে ফিরুন। দলে যোগ দেওয়ার পর থেকেই আলোচনায় রয়েছেন পাকিস্তানের মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান ফাওয়াদ আলম। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্টের একাদশে এসেছিলেন মাত্র এক ইনিংস ব্যাট করে। 4 শূন্য বলেছিল, আলোচনায় বড় সমালোচনার রূপ নিতে সময় লাগেনি।

এই ব্যাটসম্যানকে এত দিন পরে কেন ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছিল, কেন তাকে ইংল্যান্ডে পরীক্ষা দেওয়া হয়েছিল? মাইকেল ভানের মতো কিছু ক্রিকেট বিশেষজ্ঞ ফাওয়াদকে তৃতীয় টেস্ট থেকে বাদ দেওয়ার জোর দাবি জানিয়েছেন।

তবে পাকিস্তান দল পরিচালনা এই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যানকে তাড়াহুড়ো করার সিদ্ধান্ত নেয়নি। সাউদাম্পটনে বর্তমান টেস্টের জন্য আবারও তাকে একাদশে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল। তবে দুর্ভাগ্য ফাওয়াদের পেছনে ফেলে যাওয়া নয়।

এইভাবে বিভিন্ন চাপ আছে। বাঁহাতি ব্যাটসম্যানও ভুল সিদ্ধান্তের শিকার। তবে, 30 রানের বিনিময়ে 4 উইকেট হারানো দলটি টানতে আজাদ আলীকে সহায়তা করছিলেন ফাওয়াদ। তাদের জুটি থেকে পঞ্চম উইকেটে ৪৫ রান এসেছে।

ফাওয়াদ ক্লিনচেড দাঁত নিয়ে লড়াই করছিল। তিনি 64৪ বলে ২১ রানের ইনিংসে মাত্র একটি বাউন্ডারি হাঁকান। ব্যাটে বড় কিছু করার ইঙ্গিত ছিল। তবে কোথায়? উইকেটকিপার জোস বাটলার আউটিংয়ের সাথে জড়িত ডোম বেসের হাতে ধরা পড়েন।

ক্রিকেটের নিরিখে নো বল হিসাবে আউট হয়েছিলেন ফাওয়াদ। মাঠে কেউ তা খেয়াল করেনি। পরে রিপ্লেতে দেখা গেল যে ডম বেসের ডেলিভারি স্ট্যাম্পটি অতিক্রম করার আগে জস বাটলার হাত insideুকিয়ে রেখেছিল। যা ক্রিকেট আইনের ২ 27.৩ ধারায় ‘নো-বল’ হওয়ার কথা।

তবে আম্পায়ার তা খেয়াল করেননি। ফাওয়াদকেও ‘নো-বল’ নিয়ে ড্রেসিংরুমে ফিরতে হয়েছিল। আজহার আলীর সাথে তার জুটি দাঁড়ালে পাকিস্তান ম্যাচটিতে অন্যরকম পরিস্থিতিতে থাকতে পারে। আজাহার একা একাই ১৪১ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন। তবে ফলোঅন এড়াতে পারেনি পাকিস্তান। দর্শনার্থীরা এই হার নিয়ে উদ্বিগ্ন।

এমএমআর / এমএস