গ্রামবাংলার দৃষ্টিনন্দন ভেলা বাইচ

ভেলা -১

এক সময় গ্রামীণ বাংলার নদীতে নৌকা বাইচ চালানো হত। কিন্তু সময়ের বিবর্তনে সেই নৌকো হারিয়ে যেতে বসেছে। এ কারণেই নৌকা চালানোর পরিবর্তে কলাগাছের তৈরি ভেলা নৌকো এখন চলছে। দর্শনীয় রাফটিং গ্রামীণ বাংলার নতুন উত্সব হিসাবে পরিচিতি পাচ্ছে।

জানা গেছে, মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার বাঁশগাড়ি ইউনিয়নের চর উড়া চর গ্রামে সম্প্রতি একটি ভেলা দৌড় প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছিল। গ্রামের উত্সাহী যুবকরা ভেলা দৌড়ের আয়োজন করে। তারা স্থানীয় জনপ্রতিনিধি এবং ধনী ব্যক্তিদের দ্বারা পৃষ্ঠপোষকতা করা হয়। যুবকদের নিরলস পরিশ্রমের কারণে এই উৎসবটি শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

আয়োজকদের মতে, প্রতি বিকেলে আটটি ভেলা গ্রামের পাশের আড়িয়াল খান নদী শাখায় একটি আনন্দময় নৌকা বাইচটিতে অংশ নেয়। স্থানীয় যুবকরা বিভিন্ন দলে বিভক্ত হয়ে ভেলা দিয়ে এতে অংশ নিয়েছিল। প্রতিটি ভেলাতে — জন সদস্য অংশ নিয়েছিলেন। প্রতিটি ভেলা তৈরি করতে 10-12 কলা গাছের প্রয়োজন।

ভেলা -৫

প্রাথমিকভাবে কয়েকটি পর্বে এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। নির্বাচনের পরে, রেসের চূড়ান্ত রাউন্ডটি 30 আগস্ট বিকাল 3 টায় অনুষ্ঠিত হয়েছিল। মোট চারটি রাফ্ট ফাইনালে অংশ নিয়েছিল। এই সময় বিজয়ীদের পুরস্কৃত করা হয়। প্রথমটি ‘দুটি সমিতি’, দ্বিতীয়টি ‘রকেট’ এবং তৃতীয়টি ‘মায়ের প্রার্থনা’। বিজয়ীদের পুরষ্কার হিসাবে অংশগ্রহণকারীদের ছাগল (খাসি) এবং বিভিন্ন আইটেম প্রদান করা হয়েছিল।

ভেলা -২

উৎসব শুরুর পর থেকে প্রতিদিনই স্থানীয়রা ভেলাটি দেখার জন্য নদীতে ভিড় করেন। দুরদিকের নৌকা দেখতে দর্শনার্থীরাও দূর-দূরান্ত থেকে আসেন। উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহিন আহমেদ চূড়ান্ত পর্বের উদ্বোধন করেন। প্রধান অতিথি ছিলেন কালকিনি প্রেসক্লাবের সভাপতি রফিকুল ইসলাম মিন্টু।

বিশেষ অতিথিরা ছিলেন প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক কায়কোবাদ শামীম, স্থানীয় ইউপি সদস্য নুরুল ইসলাম মতুব্বার এবং ব্যবসায়ী হানিফ মাতুব্বার। উৎসবের সার্বিক দায়িত্বে ছিলেন হাবিবুর রহমান liালী। কুদ্দুস মাতুব্বার, মোঃ কবির উদ্দিন ও বেলায়েত হোসেন liালী প্রমুখ।

ভেলা -২

অনুষ্ঠানের আয়োজকগণ ইলিয়াস আহমেদ, শহিদুল ইসলাম ও মমিন উদ্দিন বলেছেন, ‘শুরুতে আমরা ছোট পরিসরে আয়োজন করেছি। তবে গ্রামের প্রত্যেকের আনন্দময় অংশগ্রহণে এই ইভেন্টটি বেড়েছে। গ্রামের সবার সহযোগিতায় নৌকাকে শান্তিপূর্ণভাবে ধরে রাখার জন্য আমি সবার কাছে কৃতজ্ঞ। ‘

এসইউ / এএ / পিআর