টাকার অভাবে থেমে আছে তাশমিমার চিকিৎসা

jagonews24

চাঁপাইনবাবগঞ্জের হাইড্রোসেফালসে আক্রান্ত শিশু তাশমিমা চিকিত্সার অভাবে মৃত্যদণ্ডে রয়েছেন। আর্থিক উপায়ের অভাবে তার পরিবার উন্নত চিকিৎসা নিতে পারছে না।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর এলাকার পোলাডাঙ্গা মহল্লার মোটর সাইকেল মেকানিক তোজাম্মেল হক তার ১৫ মাস বয়সী মেয়ে তশমিমার চিকিৎসার জন্য সমাজের ধনী সদস্যদের সহায়তা চেয়েছেন।

তাসমিমার মা লাভলি বেগম বলেছিলেন যে দ্বিতীয় সন্তান তাসমিমা জন্মের পরে একটি আল্ট্রাসনোগ্রামে প্রকাশিত হয়েছিল যে শিশুর মাথা স্বাভাবিকের চেয়ে কিছুটা বড় ছিল। স্থানীয় ক্লিনিকে সিজারিয়ান বিভাগের পরে তাসমিমার জন্ম হয়েছিল। তবে জন্মের পর থেকেই আমি নরম মাথা নিয়ে বিপদে পড়েছি। স্থানীয় চিকিৎসকদের পরামর্শে তিনি loanণ নিয়ে রাজশাহীতে নিয়ে যান এবং একজন ডাক্তারকে দেখিয়ে দেন। এই সময় চিকিত্সক বলেছিলেন এটি চিকিত্সা করতে অনেক খরচ হবে। অর্থ পরিচালনা করতে অক্ষম হয়ে আমি মেয়েটিকে বাড়িতে নিয়ে গেলাম এবং তার হোমিওপ্যাথিক চিকিত্সা করলাম। কিন্তু দিন দিন তার মাথার আকার আরও বড় হতে থাকে। এখন আর চিকিৎসা নেই।

তাসমিমার বাবা তোজাম্মেল হক জানান, মোটরসাইকেল মেরামত করে যে আয় হয় তার সংসার চালাতে তিনি লড়াই করে যাচ্ছেন। মেয়েটির মাথা অস্বাভাবিকভাবে বড় এবং পরিবারের অন্যরাও তার যত্ন নেয় না। মাথাটি এতটাই নরম যে মনে হচ্ছে মাথার মধ্যে কোনও আঙুল .ুকে যাবে। তাই ভয়ে কেউ এটাকে কোলে নেয় না। এজন্য আমি নিয়মিত দোকানে যেতে পারি না। এতে আয় আরও কমেছে।

তিনি জানান, তিনি তাসমিমার চিকিৎসার জন্য চাঁপাইনবাবগঞ্জের সিভিল সার্জনকে লিখেছিলেন।

এই পরিস্থিতিতে তিনি প্রধানমন্ত্রীসহ সমাজের ধনী ব্যক্তিদের কাছে আবেদন করেছেন। ধনী ব্যক্তিরা এগিয়ে এলে, সম্ভবত তাশমিমা চিকিত্সা করবেন এবং তার পরিবার স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসবে বলে আশাবাদী।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সিভিল সার্জন ডা। জাহিদ নজরুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি আমরা জানি। শিশুটিকে জেলা প্রশাসক এবং সমাজসেবা অধিদফতর দ্বারা চিকিত্সা করা হবে।

আবদুল্লাহ / এফএ / এমএস