দেশে খাবারের হাহাকার চলছে: রিজভী

দেশে খাবারের হাহাকার চলছে: রিজভী

Aprilাকা, এপ্রিল ২৪ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম) ““ করোন ভাইরাস প্রতিরোধে সরকার সতর্কতামূলক ব্যবস্থা না নেয়ায় দেশে এই রোগে আক্রান্ত ও মারা যাওয়ার সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে জানিয়েছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

তিনি বলেছিলেন যে আজ করোনার কারণে দেশে খাবারের জন্য কান্নাকাটি হচ্ছে। বেকার লোকেরা খাবারের সন্ধান করছেন। তারা খাবারের জন্য ছুটে চলেছে। দেশে দুর্ভিক্ষের অবস্থা রয়েছে। এই কঠিন সময়ে, বিএনপির নেতাকর্মীরা পকেটের অর্থ দিয়ে ত্রাণ দিচ্ছেন এবং ক্ষমতাসীন দলের সদস্যরা ত্রাণ চাল, ডাল এবং তেল চুরি করছেন।

শুক্রবার (২৪ এপ্রিল) সকালে রাজধানীর মোহাম্মদপুরে দরিদ্র ও দরিদ্রদের মাঝে বিভিন্ন খাদ্য সামগ্রী বিতরণকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য মাহবুবুল ইসলামের উদ্যোগে খাদ্য সামগ্রী বিতরণের আয়োজন করা হয়েছিল।

রুহুল কবির রিজভী সরকারের সমালোচনা করে বলেন যে আজ করোন ভাইরাস বাংলাদেশসহ গোটা বিশ্বে বিপর্যয় এনেছে। আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে মানুষের মধ্যে। কিন্তু বর্তমান সরকার বাংলাদেশে করোনার মোকাবেলা করার জন্য যে ধরনের অগ্রিম প্রস্তুতির প্রয়োজন হয়েছিল তা গ্রহণ করেনি। অন্যদিকে, ভিয়েতনাম এবং ভুটান সহ অনেক দেশ রয়েছে, যারা করোন ভাইরাস সংক্রমণ এবং মৃত্যুর সংখ্যা হ্রাস করতে যথাযথ পদক্ষেপ নিয়েছে। ফলস্বরূপ, বাংলাদেশে প্রস্তুতির অভাবে করোনায় আক্রান্ত রোগী এবং মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে।

তিনি বলেন, দেশের বেকার মানুষ খাবার পাচ্ছেন না। স্বল্প আয়ের লোকেরা যারা দিন এবং দিন খাওয়া-দাওয়া করেন তারা খাবার সংগ্রহ করতে পারছেন না। তারা ক্ষুধার্ত চিৎকার করছে। ভয়াবহ পরিস্থিতিতে পড়েছে। এ অবস্থায় সাধারণ মানুষ সরকারি স্বস্তি পাচ্ছেন না। পরিবর্তে ত্রাণ চাল ও ডাল আওয়ামী লীগের সদস্য চেয়ারম্যানের বাড়িতে পাওয়া যায়। তাদের বাড়িতে হাজার হাজার বস্তা চাল পাওয়া যাচ্ছে। মহামারীর মাঝে শুরু হয়েছে ধান ও ডাল চোরের উত্সব। এটা কি দরিদ্র মানুষকে সাহায্য করার জন্য, দুর্যোগ মোকাবেলা করার জন্য?

রিজভী বলেন, মহামারীর মধ্যেও বিএনপি, ছাত্রদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, যুবদল, মহিলা দল এবং এর সাথে যুক্ত সমস্ত সংগঠনের নেতাকর্মীরা দরিদ্র মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। তবে সরকার তা সহ্য করে না। বিএনপির নেতাকর্মীদের মিথ্যা অভিযোগে হামলা ও গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। এদিকে, সরকারি দলের লোকজন ত্রাণ চুরি করছে। আর বিএনপির লোকজন পকেটের টাকা দিয়ে স্বস্তি দিচ্ছেন। এজন্য সরকার নিপীড়নের পথ বেছে নিয়েছে। মিথ্যা অভিযোগ নিয়ে গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। তারা যতই গ্রেপ্তার করুক না কেন, আমরা এই মহামারীটিতে মানুষের পাশে আছি এবং থাকব। আমরা রমজান মাসে দরিদ্র মানুষের পাশে দাঁড়াব।

সূত্র: জাগোনিউজ

আর / 08: 14/24 এপ্রিল

Leave a Reply