দেশে লক্ষণ ও উপসর্গবিহীন ৮০০ জন করোনা শনাক্ত

দেশে লক্ষণ ও উপসর্গবিহীন ৮০০ জন করোনা শনাক্ত

.াকা, মে ১ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম / রয়টার্স) – একটি মারাত্মক করোনভাইরাস সংক্রমণের সাধারণ লক্ষণ হ’ল জ্বর, কাশি, গলা ব্যথা এবং শ্বাসকষ্ট। তবে এই লক্ষণগুলি নেই এমন 600 জন ব্যক্তিকে করোনার হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে। দেশের মোট জনসংখ্যার মধ্যে এই people০০ জনের কারোনার লক্ষণ বা লক্ষণ ছিল না। তারাও স্বাস্থ্যবান।

শুক্রবার বিকেলে করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে নিয়মিত অনলাইন বুলেটিনে স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ড। নাসিমা সুলতানা এ তথ্য জানিয়েছেন।

এই 600০০ জনের মধ্যে তিনি বলেছিলেন, সুস্থ থাকার জন্য পরপর দুটি পরীক্ষায় করোনার রোগীদের নেতিবাচকভাবে ফিরে আসতে হয়েছিল। কারও কারও এখনও পরীক্ষা হয়নি। কারও পরীক্ষা হয়েছে। এই পর্যায়ে আছে। তবে এগুলির কোনওটিরই কোনও লক্ষণ বা লক্ষণ নেই।

অধ্যাপক ডা: নাসিমা সুলতানা বলেছেন, কোভিড -১৯ এ সংক্রামিত ৮০ শতাংশ লোকের মধ্যে হালকা সংক্রমণ রয়েছে। তাদের লক্ষণ এবং লক্ষণগুলি হালকা। মাত্র 3 থেকে 5 শতাংশ লোকের মধ্যে বিস্তৃত লক্ষণ ও লক্ষণ রয়েছে। তাদের হাসপাতাল ও আইসিইউ সহায়তা প্রয়োজন।

তিনি বলেছিলেন যে কোয়ারান্টাইন রয়েছে তারা অসুস্থ রোগী নন। তারা ইতিবাচক রোগীর কাছাকাছি এসেছিল। তাই এগুলি আলাদা করে রাখা হয়েছে। তারা অসুস্থ নয়।

প্রফেসর ডঃ নাসিমা সুলতানা দেশের জনগণের কাছে বিশেষ অনুরোধ জানিয়ে বলেন, সামাজিকভাবে আমাদের সামাজিক সংক্রমণ চলছে। এটি সামাজিকভাবে সংক্রামিত হচ্ছে। যদি কেউ কোভিড -১৯ এ সংক্রামিত হয় তবে আমাদের উচিত তাকে তুচ্ছ করা উচিত নয়। কারণ যারা কোভিড -১৯ এ সংক্রামিত তারা দোষী নয়। যে কোনও রোগের মতো এটিও একটি রোগ। এটি সময়ের সাথে সাথে নিরাময় করে। আজ যেটি নেতিবাচক তা আগামীকাল মঙ্গলজনক হবে না তার কোন গ্যারান্টি নেই। কারণ আমরা হাইজিনের নিয়ম মানছি না। আমরা শারীরিক দূরত্ব মেনে চলছি না। সুতরাং কাউকে তুচ্ছ করবেন না। আমাদের কাউকে অপরাধী মনে করা উচিত নয়। আমি বিনীতভাবে সবাইকে মানবিক আচরণ করার জন্য আবেদন করছি।

সূত্র: যুগান্তর
এনএ / 01 মে

Leave a Reply