কর্ণফুলী বাঁচাতে সাম্পান বাইচ

jagonews24

‘ও ভাই আমড়া চাটগাইয়া নওজোয়ান / হে ভাই আমড়া চাটগাইয়া নওজোয়ান। নাকিব খান, পার্থ বড়ুয়া এবং রবি চৌধুরীর গাওয়া গানটি আবারও বাস্তবে রূপ নিয়েছিল চট্টগ্রামের ভূমিপুত্র কর্ণফুলির নৌকার মাঝিরা।

ঘড়ির হাতটি বিকেল সাড়ে তিনটায় টিক দিচ্ছিল। কর্ণফুলী জলের জোয়ার ইতোমধ্যে প্রবাহিত হতে শুরু করেছে। নদীর দক্ষিণ তীরে চরপাথরঘাট ঘাট ধরে একই লাইনে 10 টি সাম্পান দাঁড়িয়ে আছে। প্রতিটি সাম্পানে 10 টি মাঝিমল্লা রয়েছে। সবাই শিসের অপেক্ষা করছে। হুইসেল বাজানোর সাথে সাথে সাম্পান টোপ শুরু হল। তবে জোয়ারটি নৌকার চেয়ে বড় প্রতিপক্ষ হিসাবে দেখা গেল। স্রোতগুলি বঙ্গোপসাগরের মোহনার দিকে টানছে সমস্ত সাম্পানকে। কিন্তু না; তারা হলেন চাটগাইয়া নাওজোয়ান। মাঝিমল্লারা ঘামে ওয়ার্সে পাঁচ মিনিটের মধ্যে কর্ণফুলীর উত্তর তীরে অভয়মিত্র ঘাটে পৌঁছেছিলেন। শেখ আহমদ মাঝি এবং তার দল সাম্প্রতিক স্রোতে ধাক্কা দিয়ে সবাইকে অবাক করে দিয়ে প্রথম সাম্পান বেইকে পরিণত হয়েছিল।

শনিবার বিকেলে এই সুন্দর সাম্পান নৌকাটি দেখতে বিভিন্ন বয়সের হাজার হাজার পুরুষ ও মহিলা কর্ণফুলী নদীতে ভিড় করেছিলেন। তারা ওয়ারস, মোটর চালিত সাম্পান, নৌকা বা স্পিডবোট নিয়ে নদীর তীরে যাত্রা করেছিল। উদ্দেশ্য হ’ল সাম্পান খেলা বা রোয়িং।

jagonews24

কর্ণফুলীর দূষণের প্রতিবাদে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ উদযাপন উপলক্ষে দুই দিনের কর্মসূচির দ্বিতীয় দিনে আজ বিকেলে সাম্পান বাইচ অনুষ্ঠিত হয়। চট্টগ্রাম ইতিহাস ও সংস্কৃতি গবেষণা কেন্দ্র এবং কর্ণফুলী নদী সাম্পান মাঝি কল্যাণ সমিতি সহায়তা দিয়েছে।

jagonews24

মাদ্রাসাপাড়ার মোহাম্মদ তারেক এবং তার দল প্রতিযোগিতায় কিছুটা পিছন থেকে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছিল, ইছানগর-বাংলাবাজার সাম্পান মালিক সমিতি তৃতীয় স্থান অর্জন করেছে। প্রথম স্থান দলকে একটি মোটরসাইকেল, দ্বিতীয় স্থানের দলটিকে একটি ফ্রিজে এবং তৃতীয় স্থানের দলটিকে 32 ইঞ্চি রঙিন টেলিভিশন প্রদান করা হয়েছিল।

jagonews24

প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অর্জনকারী শেখ আহমদ মাঝি জাগো নিউজকে বলেন, আমরা গত দুদিন ধরে প্রশিক্ষণ নিয়েছি। আমি জানতাম প্রতিযোগিতার সময় নদীর তলদেশে উত্তেজনা তৈরি হবে তাই কৌশলটির কোনও উপায় নেই। আমি ১৩ বছর ধরে প্রতিযোগিতা করছি, প্রতিবারই আমার দল প্রথম, দ্বিতীয় বা তৃতীয়। এই প্রথম আমার দল এবং আমি খুব খুশি।

jagonews24

নৌকাটি দেখার জন্য আড়াই শতাধিক ছোট-বড় নৌকা ও সাম্পান নদীতে ভিড় করেছিল। তা ছাড়া দুপাশে কয়েক হাজার লোক ছিল। দুপুর ২ টা থেকে তারা সম্পান বাইচ দেখার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন।

jagonews24

কিছু দর্শনার্থীর কাছে মাইক্রোফোন এবং সাউন্ড সরঞ্জাম সহ নৌকা ছিল। কর্ণফুলী ও সাম্পান মাঝি নিয়ে লেখা বিভিন্ন জনপ্রিয় আঞ্চলিক গান সেখান থেকে ভেসে উঠল। তরুণীরা ‘ওরে সাম্পানওয়ালা, তুই আমারে করলি দিওয়ানা’, ‘কর্ণফুলিরে সাক্ষী রাখিলাম তারে’ গানে নাচতেন ও গেয়েছিলেন। এছাড়া ড্রামাসহ বিভিন্ন বাদ্যযন্ত্র বাজানো হয়েছিল। সাম্পান গেমের জন্য একটি বৃহত ইঞ্জিন স্টিমারের ছাদে একটি ছাউনি দিয়ে মঞ্চটি স্থাপন করা হয়েছিল। সেখান থেকে বারবার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছিল।

jagonews24

দিনব্যাপী মেলা উপলক্ষে অভয়মিত্র ঘাটে পল্লী মেলা বসে। এখানে বিভিন্ন গৃহস্থালীর আইটেম, হাঁড়ি, প্যান, খেলনা এবং অন্যান্য আইটেম উপলব্ধ। এগুলি কিনতে একদল শিশু এবং কিশোররা ভিড় জমিয়েছে। এছাড়াও মূল ভেন্যু ছিল নদীর উত্তর তীরে অভিমিত্র ঘাটে। প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, সাবেক সিটি মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাসির উদ্দিন প্রধান বক্তা হিসাবে বক্তব্য রাখেন।

jagonews24

পুরষ্কার অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেছিলেন যে মানুষের অজান্তে ও বেপরোয়া ব্যবহারের কারণে নদীগুলি দিন দিন অস্তিত্ব হারাচ্ছে। দখল ও বন্যার কারণে অনেক নদী মারা গেছে। নদী বাঁচলে প্রাণ বাঁচবে। নদী বাঁচলে দেশ বাঁচবে। তাই নদী বাঁচাতে মানুষের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ এই কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।

jagonews24

বক্তারা আরও বলেছিলেন, চট্টগ্রাম বন্দর কর্ণফুলীতে রয়েছে। দেশে চট্টগ্রাম বন্দরের বিকল্প বন্দর নেই। কর্ণফুলি যদি দখল ও দূষণের কারণে পথ হারিয়ে ফেলে তবে বন্দরটি বন্ধ হয়ে যাবে। তাই কর্ণফুলিকে রক্ষার জন্য চট্টগ্রাম বন্দরের সকল ব্যবস্থা করতে হবে। তবে বন্দর কর্তৃপক্ষ নদী তীর ও নদী ইচ্ছেমতো ইজারা দিয়েছে। উচ্চ আদালতের নির্দেশ থাকা সত্ত্বেও কর্ণফুলিতে ড্রেজিং ও বেড়া খালি করা হয়নি।

অতিথিরা বলেছিলেন, দেশের অর্থনীতি সচল রাখতে কর্ণফুলিকে সক্রিয় রাখতে হবে। আজ আমরা সাম্পান খেলা এবং চাটগাইয়া সাংস্কৃতিক মেলার মাধ্যমে কর্ণফুলিকে বাঁচানোর দাবিতে এসেছি।

আবু আজাদ / বিএ / এমকেএইচ

করোনার ভাইরাস আমাদের জীবন বদলে দিয়েছে। সময় আনন্দ এবং দুঃখে, সঙ্কটে, উদ্বেগে কাটায়। আপনি কিভাবে আপনার সময় কাটাচ্ছেন? জাগো নিউজে লিখতে পারেন। আজ পাঠান – [email protected]