‘কিছুতেই মানব না’-ভারতকে সতর্ক করে দিল পাকিস্তান

‘কিছুতেই মানব না’-ভারতকে সতর্ক করে দিল পাকিস্তান

ক্রিকেটে এখন traditionতিহ্য ও বিনোদনের চেয়ে বাণিজ্য বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আইপিএলের ক্ষেত্রেও তাই। অনেক ক্রিকেট ম্যাচ করোনার কারণে স্থগিত বা বাতিল করা হয়েছে।

তবে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই) আইপিএল বাতিল করতে রাজি হয়নি। টুর্নামেন্টটি ২৯ শে মার্চ থেকে শুরু হওয়ার কথা ছিল। প্রয়োজনে বছরের শেষ দিকে এটি পিছনে পিছনে লাগবে, তবুও আয়োজকরা টুর্নামেন্টটি বাতিল করতে নারাজ ছিলেন।

কোন সমস্যা ছিল না। মূল সমস্যা হ’ল অন্যান্য টুর্নামেন্টে আইপিএলের প্রভাব। শোনা যাচ্ছে, প্রয়োজনে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ বা এশিয়া কাপ পিছিয়ে দেওয়া হবে, তবে মাঠে আইপিএল খেলা হবে।

যেহেতু আইপিএলে বিশ্বের বৃহত্তম খেলোয়াড়, কোচ, ভাষ্যকারদের অর্থের গণনা জড়িত; তাই তারাও এই টুর্নামেন্টকে অগ্রাধিকার দিচ্ছে।

তবে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি) কোনও ছাড় দিতে নারাজ। এবারের এশিয়া কাপটি পাকিস্তানের আয়োজক সেপ্টেম্বরে। প্রয়োজনে সংযুক্ত আরব আমিরাতে খেলাটি হবে। তবে পিসিবির প্রধান নির্বাহী ওয়াসিম খান সাফ বলেছেন যে তারা আইপিএল এশিয়া কাপ মিস করতে পারবে না।

ওয়াসিম খান বলেছিলেন, ‘আমাদের অবস্থান পরিষ্কার। স্বাস্থ্য সমস্যা থাকলেই এশিয়া কাপটি সেপ্টেম্বরে হবে। তা ছাড়া আমরা আইপিএলের সুবিধার্থে এশিয়া কাপ স্থগিত করতে পারব না। ‘

পিসিবির প্রধান নির্বাহী যোগ করেছেন, “আমি শুনেছি এশিয়া কাপ নভেম্বর-ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত হবে। এটি আমাদের পক্ষে সম্ভব নয়। আপনি যদি তা করেন তবে কেবলমাত্র একজন সদস্য দেশ উপকৃত হয়। এটি সঠিক হবে না। আমরা করব না। সমর্থন করুন। “

ওয়াসিম খান বলেন, নভেম্বর-ডিসেম্বরে পাকিস্তানের একটি জিম্বাবুয়ে সিরিজ এবং ঘরের মাঠে নিউজিল্যান্ড সফর রয়েছে। ফলস্বরূপ, এই মুহূর্তে এশিয়া কাপের হোস্ট করা সম্ভব নয়।

আইপিএল-এর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার উপায় খুঁজছেন না পিসিবির প্রধান নির্বাহী। “টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপটি দর্শক ছাড়া থাকতে পারে,” বলেছিলেন তিনি। আমরা টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ না খেললে প্রতিটি বোর্ড প্রায় ১৫ থেকে ১৫ মিলিয়ন ডলার হারাবে। ‘

এমএমআর / পিআর

Leave a Reply