খোলামেলা দৃশ্যের জন্য কারাগারে শাহরুখ, মুক্ত করেন চাঙ্কি

শাহরুখ-খান- (২) .jpg

বলিউড বাদশাহ শাহরুখ খানের বেশ কয়েকটি ঘনিষ্ঠ বন্ধু রয়েছে। যাঁরা সর্বদা বিপদে কিং খানকে ছায়া দিয়েছেন। এর মধ্যে অন্যতম হলেন অভিনেতা চঙ্কি পান্ডে। দীর্ঘদিন ধরে পরিবারে জড়িত এই দুই বন্ধু।

শাহরুখের মেয়ে সুহানা এবং চঙ্কি পান্ডের মেয়ে অনন্যারও ঘনিষ্ঠ বন্ধু। মাঝেমধ্যে দুজনকে মুম্বইয়ে একসাথে ঝুলতে দেখা যায়। তাদের আগের প্রজন্মের মতো তারাও বন্ধুত্বকে টিকিয়ে রেখেছে।

তবে শাহরুখ এবং চঙ্কির সম্পর্ক সর্বদা আইকনিক। একবার শাহরুখকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। পরিষেবাটি তাঁর ঘনিষ্ঠ বন্ধু চাঙ্কি সাজিয়েছিলেন।

ঘটনাটি ঘটেছিল ১৯৯২ সালে। তাঁর চলচ্চিত্র জীবনের শুরুতে শাহরুখ অভিনয় করেছিলেন ‘মায়া মেমসব’ ছবিতে। কেতন মেহতা পরিচালিত এই ছবিতে শাহরুখ খানের বিপরীতে ছিলেন দীপা শাহী। গুস্তাভ ফ্লুবার্টের “ম্যাডাম বোভারি” অবলম্বনে নির্মিত এই ছবিতে শাহরুখ ও দীপার মধ্যে খুব ঘুমোতে যাওয়ার দৃশ্য ছিল।

সেই দৃশ্যটি নিয়ে তখন অনেক বিতর্ক ও আলোচনা হয়েছিল। পরে সেই দৃশ্যে সেন্সর বোর্ডের কাঁচিও পড়ে গেল। একটি ফিল্ম ম্যাগাজিন জানিয়েছে, বিতর্কিত দৃশ্যটি ক্যামেরায় তোলার আগে কেতন দুজনের মধ্যে অচলাবস্থা ভাঙার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেছিল। তাই তিনি শাহরুখ-দীপার রাতারাতি একটি হোটেলে একই ঘরে থাকার ব্যবস্থা করেছিলেন। পরের দিন, পরিচালক কেতন এবং তার ইউনিটের প্রধান ক্যামেরাম্যানের উপস্থিতিতে এই শুটিং হয়েছিল।

সংবাদপত্রে এই খবর পড়ে শাহরুখ খুব রেগে গিয়েছিলেন। তিনি সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন যে তিনি পত্রিকার কোনও প্রতিনিধিকে তাঁর সামনে ছেড়ে যাবেন না। একদিন সেই সুযোগ তাঁর কাছে এল। একটি ফিল্ম পার্টিতে শাহরুখ পত্রিকার এক সাংবাদিকের সাথে দেখা করেছিলেন। কিং খান সবার সামনে তাঁর সাথে তর্ক করলেন। তবে সংবাদপত্রটি এই খবরের উত্স প্রকাশ করেনি। তবে কোনওভাবেই শাহরুখ ধারণা পেয়েছিলেন যে এটি দলে সাংবাদিকের কাজ।

এরপরে শাহরুখ ফোনে সাংবাদিককে কয়েকবার হুমকি দিয়েছিলেন। কিং খান তার বাবা-মার সামনে সাংবাদিককেও আক্রমণ করেছিলেন। শাহরুখ ফোনে সাংবাদিককে গালি দেওয়ার পরেও। আতঙ্কিত সাংবাদিক পুলিশে অভিযোগ করার পরে শাহরুখকে বান্দ্রা পুলিশ গ্রেপ্তার করেছিল।

তবে তার সামাজিক পরিচয় বিবেচনা করে শাহরুখ লকড ছিলেন না। এমনকি অনেক পুলিশ কর্মকর্তা তার অটোগ্রাফও নিয়েছিলেন। শাহরুখের বন্ধু চঙ্কি পান্ডে গভীর রাত পর্যন্ত থানায় গিয়েছিল শেষ অবধি। তিনি গিয়ে সুপারস্টারের জামিনের ব্যবস্থা করলেন।

এলএ / এমএস