গিফট প্রতারণা : কোটি কোটি টাকার লেনদেন অর্ধশত অ্যাকাউন্টে

jagonews24

ফেসবুকে বন্ধুত্ব, প্রেম সম্পর্কে কখনও যোগাযোগ শুরু করবেন না। তারপরে হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে কথোপকথন। এক পর্যায়ে প্রচুর পরিমাণে পার্সেল, ডলার, চাকরি বা ব্যবসায় বিনিয়োগ করার প্রলোভন। হাজার হাজার ‘শিক্ষিত’ বাংলাদেশী আফ্রিকান নাইজেরিয়ানদের ফাঁদে ফেলে কোটি কোটি টাকা লোকসান করেছে।

অর্ধ শতাধিক বাংলাদেশী ব্যাংক অ্যাকাউন্টে কোটি কোটি টাকা জালিয়াতির লেনদেন হয়েছে এবং তা প্রত্যাহার করা হয়েছে। পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) ইতিমধ্যে ৩ accounts টি অ্যাকাউন্টে লেনদেনের তথ্য পাওয়ার পরে আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।

এদিকে, সিআইডি রাজধানীর ভাটারা এলাকা থেকে ডাচ-বাংলা ব্যাংক লিমিটেডের (ডিবিবিএল) স্থানীয় অ্যাকাউন্টধারী তাজ মোহাম্মদকে গ্রেপ্তার করেছে। জালিয়াতিদের দ্বারা নেওয়া অর্থের লেনদেনে তিনি নিজের অ্যাকাউন্টটি ব্যবহারের সুযোগ নিয়ে 10 হাজার টাকা নিয়ে যেতেন।

২ 26 আগস্ট, পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) ফেসবুকের বন্ধুত্বের মাধ্যমে উপহার দেওয়ার নামে মোটা অঙ্কের অর্থ আত্মসাৎ করার জন্য পল্লবীসহ রাজধানীর বিভিন্ন জায়গা থেকে বিদেশী জালিয়াতির আংটির ১৫ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছিল। গ্রেপ্তারকৃত সবাই হলেন নাইজেরিয়ান নাগরিক। গ্রেপ্তার হওয়ার পরে এবং এক মাসের মধ্যে একই জালিয়াতির অভিযোগে তাকে রিমান্ডে নিয়ে মোট ৩০ জন বিদেশি কারাগারে রয়েছেন।

jagonews24

সিআইডির অতিরিক্ত ডিআইজি শেখ রেজাউল হায়দার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জাগো নিউজকে জানান, গ্রেপ্তারকৃতরা একটি সংগঠিত চক্রের সদস্য ছিল। তারা দামী উপহারের লোভ দেখিয়ে বন্ধুত্বের নামে ফেসবুকে অনেক লোকের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকা ছিনিয়ে নিয়েছে। আশ্চর্যের বিষয়, লোভের দ্বারা প্রতারিতরা সকলেই শিক্ষিত এবং প্রতিষ্ঠিত। জালিয়াতির মাধ্যমে লক্ষ লক্ষ টাকা হারানোর পরেও অনেকে প্রকাশ্যে আসতে চান না।

তিনি বলেছিলেন যে কিছু অসাধু বাংলাদেশী নাইজেরিয়ার জালিয়াতির সদস্যদের সাথেও জড়িত। আমরা তাদের বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করেছি। এর মধ্যে প্রাক্তন Uাবির শিক্ষার্থী তুর্না গ্রেপ্তারের পরে কারাগারে রয়েছেন। প্রতারণা ফেসবুকে বন্ধুত্ব দিয়ে শুরু হয়েছিল। কেউ কেউ প্রচুর বিনিয়োগের আশায় ভালোবাসার ফাঁদে, অন্যদের others বা পার্সেল, ডলার, চাকরি বা ব্যবসায়।

jagonews24

তদন্তের সাথে জড়িত একজন সিআইডি কর্মকর্তা জাগো নিউজকে বলেছিলেন যে নাইজেরিয়ান কেলেঙ্কারীতে ক্ষতিগ্রস্থদের সংখ্যা কয়েক হাজারে ছিল। সিআইডি অফিসে ৫০ জনেরও বেশি ব্যক্তি ব্যক্তিগতভাবে অভিযোগ করেছেন। তাদের বেশিরভাগ লোকসান হয়েছে পাঁচ থেকে ২৫ লাখ টাকার মধ্যে।

এ জাতীয় বেসরকারী এনজিওর মহিলা কর্মকর্তা মালয়েশিয়ার এক সুদর্শন যুবকের প্রেমে পড়েন। তারপরে তার মোবাইল নম্বর দিয়ে, তিনি কৌশলে কোড নম্বরটি নিয়ে বাংলাদেশে একটি হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্ট খুললেন। তারপরে তিনি ওই নম্বর থেকে ওই মহিলার সাথে আট মাসের প্রেমের সম্পর্ক তৈরি করেছিলেন। বিয়েতেও ইংরেজিতে কথা বলা হয়। বিশ্বাসযোগ্যতা অর্জনের এই মুহুর্তে ফাঁদ সেট করা আছে। প্রায় 35 হাজার পাউন্ডের নগদ উপহার পাওয়ার সুযোগ দেখানো হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্থ মহিলা উপহার সংগ্রহের জন্য প্রতারণার অ্যাকাউন্টে 11 লক্ষ টাকা পাঠিয়েছিলেন। তারপরে যোগাযোগটি সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। পরে তিনি বুঝতে পেরেছিলেন যে তাকে প্রতারণা করা হয়েছিল। মহিলা সিআইডিকে বিষয়টি অনলাইনে অবহিত করেছেন এবং এই টাকা উদ্ধারে সহায়তা চেয়েছিলেন।

jagonews24

এ বিষয়ে সিআইডির অতিরিক্ত ডিআইজি শেখ রেজাউল হায়দার বলেছিলেন যে নাইজেরিয়ার জালিয়াতিরা কেবল বাংলাদেশে নয়, ভারত, নেপাল, ইন্দোনেশিয়া, ইয়েমেন, ফিলিপাইন, সিঙ্গাপুর এবং দুবাইতে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক তৈরির পরে তাদের ব্যবহারকারীর এসএমএসের মাধ্যমে আকর্ষণীয় ব্যক্তিগত ছবি পাঠিয়েছে ল্যাপটপ এবং মোবাইল। সিআইডি সেসব দেশে তাদের যোগাযোগ এবং ভ্রমণ সম্পর্কেও তথ্য পেয়েছে। বিভিন্ন দেশের মানুষকে বোকা বানিয়ে উপহার দেওয়ার নামে তারা নিজ নিজ দেশের ব্যাংক অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে বিপুল পরিমাণ অর্থ অপব্যবহার করেছে।

তিনি আরও বলেছিলেন যে এই নাইজেরিয়ান অপরাধীদের বাংলাদেশি অ্যাকাউন্টধারীরা সহায়তা করেছেন। তারা তাদের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করার সুযোগ দিয়েছে। এ জাতীয় সুযোগের বিনিময়ে তারা চক্র থেকে 10 থেকে 15 হাজার টাকার কমিশন পেয়েছে।

jagonews24

রেজাউল হায়দার বলেন, “আমরা বিভিন্ন ব্যাংকের ৩ 36 টি অ্যাকাউন্টের তথ্য পেয়েছি, সেগুলি পরীক্ষা করে বাছাই করা হচ্ছে।” যেসব অ্যাকাউন্টে হিসাবধারীরা, কোন অ্যাকাউন্ট থেকে কতটা লেনদেন হয়েছে, সেসব অ্যাকাউন্টে যে পরিমাণ লেনদেন হয়েছে, সে সম্পর্কে বাংলাদেশ ব্যাংকের সমস্ত তথ্য সংগ্রহ করে দায়ীদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

jagonews24

একইভাবে প্রতারণার অভিযোগে সিআইডি ২ ও ১৩ জুলাই তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছিল। ২৮ আগস্ট গ্রেপ্তার হওয়া ১৫ জনের প্রত্যেকের সাথে তাদের যোগাযোগ রয়েছে। জালিয়াতি অর্থ গ্রহণের জন্য ব্যবহৃত এক বা একাধিক ব্যাংক অ্যাকাউন্টধারীদের নামের মধ্যেও মিল রয়েছে বলে সিআইডি তদন্তকারীরা জানিয়েছেন।

জেইউ / এমএআর / এমএস