গ্রিসের রাষ্ট্রপতির কাছে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের পরিচয়পত্র পেশ

গ্রীস

গ্রিসে বাংলাদেশের নবনিযুক্ত রাষ্ট্রদূত আসুদ আহমেদ দেশটির রাষ্ট্রপতির কাছে তার শংসাপত্র উপস্থাপন করেছেন। তিনি ২৩ শে অক্টোবরের সকালে এথেন্সের গ্রীক প্রেসিডেন্সিতে একটি অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি ক্যাটারিনা সেকেলাপোলোর কাছে তার শংসাপত্রাদি উপস্থাপন করেছিলেন।

পরিচয়পত্র উপস্থাপনের পরে গ্রীক রাষ্ট্রপতি এবং বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের মধ্যে একটি বৈঠক হয়। সভায় গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব গ্রহণের জন্য রাষ্ট্রদূতকে অভিনন্দন জানিয়েছেন কেটারিনা সেকেল্লারাপুলো। বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গ্রীক রাষ্ট্রপতিকে গ্রহণ করার জন্য তাকে ধন্যবাদ জানান এবং বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানান তিনি। গ্রীক সরকারের পূর্ণ সমর্থন প্রত্যাশা করে আসুদ আহমেদ তার পূর্বসূরীর পাশাপাশি সহযোগিতা করার আহ্বান জানিয়েছিলেন।

বাংলাদেশ ও গ্রীসের মধ্যকার বিদ্যমান বন্ধুত্বপূর্ণ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে রাষ্ট্রদূত দুই বন্ধুত্বপূর্ণ দেশের স্বার্থে পারস্পরিক সহযোগিতার নতুন ক্ষেত্র চিহ্নিত করে সম্পর্ককে আরও জোরদার করতে অবদান রাখার প্রতিশ্রুতি দেন। আসুদ আহমেদ উল্লেখ করেছিলেন যে গ্রিস বাংলাদেশের স্বাধীনতার পরে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি প্রদানকারী প্রথম দেশগুলির মধ্যে একটি ছিল।

রাষ্ট্রদূত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গ্রীসের রাষ্ট্রপতিকে বাংলাদেশের উন্নতি, বিশেষত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি এবং বিভিন্ন আর্থ-সামাজিক সূচকে অব্যাহত wardর্ধ্বগতি সম্পর্কে অবহিত করেন। তিনি বাংলাদেশ সরকারের ব্যবসায় বান্ধব নীতি এবং বিনিয়োগকারীদের জন্য বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা ও প্রণোদনের কথাও উল্লেখ করেন।

গতবছর গ্রিসে বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রীর সফল দ্বিপক্ষীয় সফরের কথা উল্লেখ করে আসুদ আহমেদ বলেছিলেন যে পারস্পরিক সুবিধাজনক সময়ে গ্রীক পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বাংলাদেশ সফরটিতে একটি ব্যবসায়ী প্রতিনিধি অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে যাতে দুটি ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের সম্ভাবনা দেখা যায় বিনিয়োগ এবং বাণিজ্যের ক্ষেত্রসমূহ।

রাষ্ট্রদূত মিয়ানমারের পশ্চিম রাখাইন রাজ্য থেকে বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের ১.১ মিলিয়ন (রোহিঙ্গা) প্রত্যাবাসনে গ্রীক সরকারের সহযোগিতা কামনা করেছেন, গত চার বছরে বাংলাদেশ যে মানবতার উদাহরণ দিয়েছে তার উল্লেখ করে।

গ্রীক রাষ্ট্রপতি এসব বিষয়ে পূর্ণ সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন। তিনি গ্রিসে অবস্থানকালে রাষ্ট্রদূতকে সর্বকালের শুভেচ্ছার শুভেচ্ছা জানান এবং আশা প্রকাশ করেন যে তার আমলে দুই দেশের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক আরও তীব্র হবে। তিনি দু’দেশের ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের মধ্যে বিদ্যমান বাণিজ্য ও বাণিজ্য সম্পর্কে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন এবং আশা প্রকাশ করেছেন যে আগামী দিনের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য সম্পর্ক আরও তীব্র হবে।

এমএসএইচ / এমএস

করোনার ভাইরাস আমাদের জীবন বদলে দিয়েছে। আনন্দ-বেদনা, সংকট, উদ্বেগের মধ্যে সময় কেটে যাচ্ছে। আপনি কিভাবে আপনার সময় কাটাচ্ছেন? জাগো নিউজে লিখতে পারেন। আজ পাঠান – [email protected]