চন্দন আমেরিকার সিনেটর নির্বাচিত হওয়ায় কিশোরগঞ্জে মিষ্টি বিতরণ

কিশোরগঞ্জ -২

তিনি দ্বিতীয়বারের মত জর্জিয়ার সিনেটর নির্বাচিত হওয়ায় কিশোরগঞ্জের শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দনের গ্রামের বাড়িতে মিষ্টি বিতরণ ও আনন্দ মিছিল বিতরণ করেছেন।

মার্কিন নির্বাচনে সিনেটর পদে তার পুনর্নির্বাচনের খবরে বুধবার সন্ধ্যায় কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর উপজেলার সরচরস্থ তার নিজ গ্রামের বাড়িতে স্থানীয় জনতা আনন্দ মিছিল বের করে।

মিছিলটি সরচর বাজার ও আশেপাশের সড়ক প্রদক্ষিন করে শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দনের বাড়িতে গিয়ে শেষ হয়। পরে স্থানীয়রা একে অপরের সাথে মিষ্টি খেয়ে আনন্দ প্রকাশ করেন।

সন্ধ্যায় কিশোরগঞ্জ জেলা সদর আখড়াবাজারের সৈয়দ নজরুল ইসলাম চত্তরে উন্মুক্ত মঞ্চে উৎসব ও মিষ্টি বিতরণ করা হয়। তারা শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দনকে সিনেটর পদে পুনর্নির্বাচিত হওয়ার জন্য আন্তরিকভাবে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

অন্যদিকে, আত্মহাহার চন্দনের শতবর্ষী মা সৈয়দা হাজেরা খাতুন খুশি যে তার ছেলে মার্কিন সিনেটর নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি আরও বলেছিলেন যে তাঁর ছেলে বাংলাদেশের পাশাপাশি আমেরিকার কল্যাণে কাজ করবে।

আশির দশকে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমান। তারপরে তিনি উত্তর ক্যারোলিনার জর্জিয়া বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমবিএ করেছিলেন। শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দন গত বছর ডেমোক্র্যাটিক পার্টির সম্মেলনে জাতীয় কমিটির সক্রিয় সদস্য হয়ে প্রথম বাংলাদেশী হিসাবে নির্বাচিত হয়েছিলেন।

কিশোরগঞ্জ

তিনি তার শেষ মেয়াদে জর্জিয়া রাজ্য থেকে সিনেটর নির্বাচিত হয়েছিলেন। এর আগে, ২০১২ সালে তিনি জর্জিয়া জেনারেল অ্যাসেমব্লির প্রার্থী হিসাবে দৌড়েছিলেন।

প্রায় 39 বছরের মধ্যে প্রথমবারের মতো তিনি গত বছর তার মায়ের 90 তম জন্মদিনে বাড়িতে এসেছিলেন। এ সময় তার বড় বোন তাহেরা হক, ছোট ভাই বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শেখ মুজিবুর রহমান ইকবাল, ছোট বোন মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ তাহমিনা আক্তার সামিয়া, ছোট বোন নাদিরা রহমান এবং নাহিদা আক্তার, বিশিষ্ট আমেরিকান ব্যবসায়ী, ভাগ্নে শ্বশুর ওয়েস্টিন সাসমান সহ পরিবারের সদস্যরা। , মার্কিন নাগরিক, ভাগ্নী মিশা উপস্থিত ছিলেন।

এক স্ত্রী, এক মেয়ে ও এক ছেলের বাবা শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দন আটলান্টায় থাকেন। বাবার চাকরির কারণে তিনি তাঁর শৈশব Dhakaাকায় কাটিয়েছেন। বাবা শেখ নজিবুর রহমান আগরতলা জয়বাংলা যুব শিবিরের একজন মুক্তিযোদ্ধা ও তত্ত্বাবধায়ক ছিলেন।

নুর মোহাম্মদ / এমএএস / পিআর

করোনার ভাইরাস আমাদের জীবন বদলে দিয়েছে। আনন্দ, বেদনা, সংকট, উদ্বেগ নিয়ে সময় কাটায়। আপনি কিভাবে আপনার সময় কাটাচ্ছেন? জাগো নিউজে লিখতে পারেন। আজ পাঠান – [email protected]