ছাত্রলীগ নেতার প্রাইভেটকারে আগুন দিল কে? জানতে তদন্তে পুলিশ

jagonews24

গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার গোসিংগা এলাকার আবদুল মোতালেব খানের বাড়ির গ্যারেজে আগুন লাগে। অগ্নিকাণ্ডটি গ্যারেজটিতে একটি প্রাইভেটকারে আগুন লেগেছে।

সোমবার (১৮ নভেম্বর) রাত সাড়ে ৮ টার দিকে আগুনের সূত্রপাত হয়।

জানা গেছে, গাড়িটি গোসিঙ্গা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি শাকিল খানের। পুলিশ বিষয়টি খতিয়ে দেখছে।

গোসিংগা ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রাজু শেখ জানান, গোসিংগা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি আবদুল মোতালেব খানের ছোট ছেলে শাকিল খান এবং তার বড় ছেলে একই ইউনিয়ন যুবলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোঃ শরীফ খান সৌদি প্রবাসী। । শাকিল খান তার পরিবারের ব্যবহারের জন্য বাবার নামে গাড়িটি কিনেছিলেন। তার বাবা তার বড় ছেলের নাতি ও স্ত্রীকে নিয়ে একই উপজেলার সিংহেরদীঘি এলাকায় থাকেন। নিঃসন্তান অবস্থায় শরিফ খানের স্ত্রী কাপাসিয়ায় তার বাবার বাড়িতে অবস্থান করছেন। কেবল তত্ত্বাবধায়ক মনির হোসেন বাড়িটির যত্ন নিলেন।

মনির সারাদিন অটোরিকশা চালায়। রাতে বাসায় ফিরবে। প্রয়োজনে গাড়িটি পরিবারের সদস্যরা ব্যবহার করেন। চালক মো। কাউসার সোমবার বিকেলে গাড়িটি ধুয়ে ফেলেন, গ্যারেজে রেখে গ্যারেজটি তালাবদ্ধ করে স্থানীয় পেলাইদ এলাকায় তার নিজের বাড়িতে চলে যান। গ্যারেজে আগুন লাগার খবর পেয়ে প্রতিবেশীরা রাত আটটার দিকে ঘটনাস্থলে পৌঁছে স্থানীয় ফায়ার স্টেশনে খবর দেয়। শ্রীপুর ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছার আগেই স্থানীয়রা আগুন নিভিয়ে দেয়। তখন বাড়িতে কোনও তত্ত্বাবধায়ক ছিল না।

সৌদি প্রবাসী ড। শরীফ খান ফোনে বলেন, আমরা দুই ভাই সৌদি আরব থেকে ব্যবসা করি। আমি যদি দেশে নয় মাস থাকি তবে আমি তিন মাস সৌদিতে থাকি। মহামারীর জন্য এবার করোনা দেশে ফিরে আসেনি। দীর্ঘদিন ধরে আমাদের জমি নিয়ে শ্রীপুর উপজেলা চেয়ারম্যান শামসুল আলম প্রধানের আত্মীয় আজিজ ফকিরের সাথে বিরোধ চলছে। গত উপজেলা নির্বাচনে শামসুল আলম প্রধানের সাথে নির্বাচনের কাজে অংশ না নেওয়ায় বিরোধ হয়েছিল। প্রায় এক মাস আগে তাদের দু’জনের বিরোধিতার কারণে তাদের লোকেরা আমার জমির সীমানা প্রাচীরটি ভেঙে দেয়। শরীফ খানের ধারণা শামসুল আলম প্রধান ও আজিজ ফকিরের লোকজন এই আগুনের পিছনে রয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে শ্রীপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শামসুল আলম প্রধান অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আগুনে তার ও আজিজ ফকিরের লোকজনের কোনও হাত নেই। বিতর্কিত জমির প্রকৃত মালিক হলেন প্রয়াত আজিজ ফকির ও গ্যাং। জমি নিয়ে আদালত মামলার সময় আজিজ ফকির মারা যান। শরীফ খান ও শাকিল খান জমিটি দখলের জন্য আজিজ ফকিরের বাচ্চাদের বিভিন্নভাবে হয়রানি করছেন।

শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খন্দকার ইমাম হোসেন জানান, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তদন্ত শেষ হওয়ার আগে কিছু বলা যায় না।

শ্রীপুর ফায়ার স্টেশনের গুদাম পরিদর্শক মীর রাজউদ্দিন বলেছেন, এটি নাশকতা বা দুর্ঘটনা তা তাৎক্ষণিকভাবে পরিষ্কার হয়ে যায়নি।

শিহাব খান / এসআর / জেআইএম

করোনার ভাইরাস আমাদের জীবন বদলে দিয়েছে। সময় আনন্দ এবং দুঃখে, সঙ্কটে, উদ্বেগে কাটায়। আপনি কিভাবে আপনার সময় কাটাচ্ছেন? জাগো নিউজে লিখতে পারেন। আজ পাঠান – [email protected]