জার্মানিতে আওয়ামী লীগের শোক দিবস পালন

jagonews24

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ জার্মানি শাখার উদ্যোগে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাতবার্ষিকী এবং জাতীয় শোক দিবস উদযাপিত হয়েছে। এ উপলক্ষে ফ্র্যাঙ্কফুর্টে একটি আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

অনুষ্ঠানের শুরুতে কুরআন তেলাওয়াতের পরে ১৫ ই আগস্ট সকল শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। পরে, জার্মান আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাকর্মীরা , বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং ১৯ August৫ সালের ১৫ আগস্ট রাতে নিহত সকলের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে শেখ রাসেল পরিষদ এবং অন্যান্য সংস্থাগুলি এক মিনিটের নীরবতা পালন করে।

জার্মান আওয়ামী লীগের সভাপতি বসিরুল আলম চৌধুরী সবুর সভাপতিত্বে আলোচনার সভাপতিত্ব করেন এবং প্রধান অতিথি ছিলেন জার্মান আওয়ামী লীগের প্রধান উপদেষ্টা জনাব অনিল দাশ গুপ্ত এবং অল ইউরোপীয় আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ও প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি মো।

বিশেষ অতিথি ছিলেন জার্মান আওয়ামী লীগের প্রধান পৃষ্ঠপোষক আমিনুর রহমান খসরু।
সিনিয়র উপদেষ্টা বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম, সিনিয়র উপদেষ্টা বীর মুক্তিযোদ্ধা মহসিন হায়দার মনি এবং উপদেষ্টা সরদার আলী আহমেদ।

প্রধান বক্তা হিসাবে বক্তব্য রাখেন জার্মান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্বাস আলী চৌধুরী। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বাবুল মোল্লা এবং কেন্দ্রীয় জার্মান আওয়ামী লীগের সদস্য ফরিদ শিহাব হোসেন।

এছাড়াও আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন সিনিয়র সহসভাপতি ইউনুস আলী খান, সিনিয়র সহ-সভাপতি ও জার্মান আওয়ামী লীগের হেসেন শাখার সভাপতি নূর হাসনাত শিপন, সিনিয়র সহ-সভাপতি জাহিদুল ইসলাম পুলক, সিনিয়র সহ-সভাপতি জিল্লুর রহমান, সিনিয়র সহ-সভাপতি জাহাঙ্গীর হোসেন প্রমুখ। সহ-সভাপতি মাবু চৌধুরী, সহ-সভাপতি নাসির উদ্দিন, সহ-রাষ্ট্রপতি দেলোয়ার হোসেন, সহ-সভাপতি আসমা ইসলাম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জামেশে আলম রানা।

যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার হাবিবুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, জার্মান আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি আমানউল্লাহ ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক কায়সার উল আলম, পরিবেশ সম্পাদক পঙ্কজ দেব নাথ, নির্বাহী সদস্য বোরহান খান, হেসেন শাখা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো। …. মোতালেব, নির্বাহী সদস্য মান্নান খান, স্টুটগার্ট শাখা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুল আলম মিল্টন, আবুল কালাম আজাদ, মহসিন খান সহ আরও অনেকে।

jagonews24

বক্তারা বলেন, “আমরা কেবল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সক্ষম নেতৃত্বের কারণে একটি স্বাধীন দেশের গর্বিত নাগরিক হয়েছি।” ১৯ 197৫ সালের ১৫ আগস্ট রাতে বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সদস্যদের হত্যা করে ঘাতকরা জাতির ইতিহাসের এক কলঙ্কজনক অধ্যায় লিখেছিল। ঘাতকরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করলেও তার স্বপ্ন ও আদর্শ আজ সর্বত্র ছড়িয়ে পড়েছে।

আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, বঙ্গবন্ধু যে দেশটির মাধ্যমে বাংলাদেশ নামে একটি রাষ্ট্রের জন্ম দিয়েছিল সে দেশের উন্নয়নের জন্য সকলকে isonক্যবদ্ধভাবে কাজ করা উচিত। তারা বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনিদের দ্রুত ফাঁসি কার্যকর করার দাবি জানান।

জার্মান আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাও দাবি করেছিলেন যে যারা এই হত্যাকাণ্ড চালিয়েছে তাদের যথাযথ তদন্তের মাধ্যমে বিচারের আওতায় আনা হোক।

এমআরএম / এমকেএইচ