জোয়ার এলেই ঘর ডোবে

পটুয়াখালী

বঙ্গোপসাগরের ক্রমবর্ধমান জোয়ারের কারণে জেলার সমস্ত নদীতে জলের স্তর বেড়েছে। গত তিন দিন ধরে ভাঙা বেড়িবাঁধ দিয়ে লোকালয়ে পানি প্রবেশ করছে। দিনরাত দু’বার জোয়ারের জলে theুকে জোয়ার নেমে যায়। এতে সাধারণ মানুষ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন।

জলোচ্ছ্বাসের পানি স্বাভাবিকের চেয়ে 2 থেকে 3 ফুট বেশি বেড়ে যাওয়ায় রাস্তা দিয়ে পানি প্রবাহিত হয়েছে বলে জানা গেছে। ডুবে গেছে গ্রামীণ বসতি, মানুষের বাড়িঘর ও ফসলের জমি। রাঙ্গাবালী উপজেলার চলতাবুনিয়া ইউনিয়নের চলতাবুনিয়া বাজার, বিবি হাওলা, গোলবুনিয়া, চরলতা, মধ্য চালিতাবুনিয়া ও মারাজঙ্গী গ্রাম জলোচ্ছ্বাসের জলে ডুবে গেছে। একই সঙ্গে ভাঙ্গা বেড়িবাঁধ দিয়ে চরমোনতজ ইউনিয়নের চরন্দা গ্রাম ও ছোট বৈশাদিয়া ইউনিয়নের কোরালিয়া গ্রামে পানি প্রবেশ করছে।

এছাড়া সাগরকন্যা কুয়াকাটা বিভিন্ন স্থান ভেঙে গেছে। সমুদ্রের বিশাল wavesেউয়ের কারণে ঝাউবাগানসহ লেম্বুরচর এলাকার গাছ উপড়ে পড়েছে। কলাপাড়ার লালুয়া ও নিজপুরপুর সহ অনেক গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

এদিকে, জল বাড়ার কারণে গালাচিপাড়ের হরিদেবপুর, মির্জাগঞ্জের পাইড়াগঞ্জ, বাউফলের বোগা ও ডুমকির লেবুখালীর ফেরি চলাচল বন্ধ রয়েছে।

অন্যদিকে, পটুয়াখালী পৌর শহর, নবাবপাড়া, জয়ন্তী স্কুল রোড, পুরাতন হাসপাতাল রোড, মহিলা কলেজ রোড, সিভিল সার্জনের অফিস, সড়ক ও জনপথ অফিস, সড়ক ও জনপথ অফিস, নিউমার্কেট পোস্ট অফিস রোডে অপরিকল্পিত নগর সুরক্ষা বাঁধ নির্মাণের কারণে শিমুলবাগে শিমুলবাগ নির্মিত হচ্ছে। ।

পটুয়াখালী যুব ফোরামের সভাপতি মো। জহিরুল ইসলাম বলেন, গত কয়েক দিনের জলের জলে কেবল গ্রাম এবং শহরগুলিতে বন্যা হয়নি, ভবিষ্যতের প্রজন্ম ও বাংলাদেশকে একটি সতর্কতা সংকেত দিয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব কীভাবে পানির স্তর বাড়িয়ে দক্ষিণ দিকে ডুবে থাকবে তার একটি চিত্তাকর্ষক উদাহরণ। আপনি যদি আরও প্রমাণ দেখতে চান তবে কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতটি দেখুন।

নগরীর নদী তীর এলাকার বাসিন্দা শ্রী অতুল শীল জানান, গত তিন দিন ধরে ঘরবাড়ি এবং দরজা জোয়ারের পানিতে দিনরাত নিমজ্জিত ছিল এবং পানি নিচু জোয়ারে নেমে গেছে। আমি আমার স্ত্রী এবং ছোট বাচ্চাদের নিয়ে বেঞ্চে বসে আছি। জোয়ার কমার সাথে সাথে আবার সবকিছু ঠিক করতে হবে। দুর্ভোগ চরম। যা আমি ব্যাখ্যা করতে পারি না।

পটুয়াখালী -২

পটুয়াখালী নদী বন্দরের উপপরিচালক খাজা বলেছেন, নদী বন্দরকে ২ নম্বর সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। এ কারণেই 65৫ ফুটের নিচে সমস্ত নৌপরিবহন আপাতত বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এটি কার্যকর থাকবে।

এদিকে, পটুয়াখালী পৌর মেয়র মহিউদ্দিন আহমেদ বলেছেন, অপরিকল্পিত শহর সুরক্ষা বাঁধের কারণে প্রতিবছর জলোচ্ছ্বাসের জমি পৌর শহরে প্রবেশ করে। এতে নাগরিকদের সীমাহীন দুর্ভোগ বহন করা হয়। বিষয়টি সমাধানের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ পানি উন্নয়ন বোর্ডকে অবহিত করেছে।

আলিপুর ফিশারম্যান্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মো। আনছার উদ্দিন মোল্লা বলেন, বৈরী আবহাওয়ার কারণে সমুদ্র রুক্ষ হওয়ায় জেলেরা উপকূলে ফিরে এসেছিল। সমস্ত ফিশিং ট্রলার এখন আলিপুর-মহিপুর ফিশিং বন্দরে অবস্থিত।

মাহিবুল্লাহ চৌধুরী / এফএ / পিআর