ঝালকাঠিতে পানিতে তলিয়ে গেছে দুই শতাধিক মাছের ঘের

jagonews24

ঝালকাঠিতে জলোচ্ছ্বাস ও জলের বৃষ্টিপাতের ফলে দুই শতাধিক মাছের পুকুর এবং কয়েক হাজার পুকুর ডুবে গেছে। ঘের এবং পুকুরের বেশিরভাগ মাছ। ফলস্বরূপ, বেড়া ও পুকুরের মালিকরা ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

স্থানীয়ভাবে ১০ কোটি টাকারও বেশি লোকসান হয়েছে বলে জানিয়েছেন বেড়া ও পুকুরের মালিকরা। তবে জেলা মৎস্য অধিদফতর প্রাথমিক পর্যায়ে ১০০ টি পুকুর ও p০০ টি পুকুরে চাষের মাছের ক্ষয়ক্ষতির কথা উল্লেখ করে একটি মন্ত্রণালয়কে একটি তালিকা পাঠিয়েছে।

রবিবার (২৩ আগস্ট) সন্ধ্যায় ঝালকাঠি সদর উপজেলার বিনয়কাঠি ইউনিয়নের বালাকদিয়া গ্রামে ঘটনাস্থলে এটি দেখা যায়।

বালাকদিয়া গ্রামের একটি ফিশ ফার্মের মালিক শফিকুল ইসলাম বলেন, “আমি গত দশ বছর ধরে মাছ ধরছি। এই বছর আমি ব্যাংক থেকে takenণ নিয়েছি এবং নিজের অর্থ দিয়ে আমি 6 একর জমিতে জালিয়াতি করেছি। আমার চারপাশে বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় 5 লক্ষ মাছ ছিল। এ বছর এ পর্যন্ত আমি মাছ চাষে ৪০ মিলিয়ন টাকারও বেশি ব্যয় করেছি। বেড়াটি ডুবে না থাকলে আমি এখান থেকে প্রায় ৫০ লক্ষ টাকার মাছ বিক্রি করতে পারতাম। তবে ক্রমবর্ধমান জলের কারণে আমার ঘেরের সমস্ত মাছ বেরিয়ে গেছে। তিনি জানান, মাছের পাশাপাশি অন্যান্য শাকসবজিও ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।

ঝালকাঠি জেলা মৎস্য কর্মকর্তা বাবুল কৃষ্ণ ওঝা জানান, গত কয়েকদিন ধরে বৃষ্টির কারণে অনেক মাছের পুকুর তলিয়ে গেছে। তবে জেলা মৎস্য বিভাগ এর আগে মাছ চাষীদের সতর্ক করেছিল যে এ বছর আরও বন্যা হবে। এত লোক জাল ঝুলিয়ে ঘের এবং পুকুরে মাছ সংরক্ষণ করতে সক্ষম হয়েছে। আমরা বিভিন্ন জায়গা পরিদর্শন করেছি। প্রাথমিকভাবে ১০০ টি মাছের পুকুর ও 600০০ জলাশয়ে এক কোটি টাকার মাছের ক্ষয়ক্ষতির কথা উল্লেখ করে একটি তালিকা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। সরকার যদি কোনও অর্থ বরাদ্দ করে তবে তা ক্ষতিগ্রস্থ মাছ চাষীদের দেওয়া হবে।

মোঃ আতিকুর রহমান / এমএসএইচ