ডাক্তার পরিচয়ে রোগী দেখেন ক্লিনিক মালিক

মির্জাপুর-2

বেসরকারী ক্লিনিক সান্তওয়ানা ডেন্টাল হলের মালিক সৈয়দ মাকসুদুল ইসলাম মাসুদকে চিকিৎসক না করে রোগীদের চিকিত্সার জন্য আরও এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। সোমবার (২০ জুলাই) দুপুরে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো। যুবায়ের হোসেন উপজেলা সদরের কুমুদিনী হাসপাতাল রোডের অনিবন্ধিত ক্লিনিকে অভিযান চালিয়ে জরিমানা করেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সহকারী ডেন্টাল সার্জন ডা। ফারহানা ও মির্জাপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) খবির হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

জানা গেছে, সৈয়দ মাকসুদুল ইসলাম মাসুদ দীর্ঘদিন ধরে চিকিৎসকের পরিচয় দিয়ে রোগীদের চিকিত্সা করে আসছিলেন। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সোমবার বিকেলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও মির্জাপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো। অপারেশনটির নেতৃত্বে ছিলেন যুবায়ের হোসেন। এ সময় তিনি সান্তওয়ানা ডেন্টাল হলের মালিক সৈয়দ মাকসুদুল ইসলাম মাসুদকে এক লাখ টাকা জরিমানা করেন এবং ক্লিনিক বন্ধের নির্দেশ দেন।

এর আগে, 20 সেপ্টেম্বর, 2016, তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো। মাসুম আহমেদের নেতৃত্বে সান্তওয়ানা ডেন্টাল হলে অভিযান চালানো হয় এবং এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয় এবং ক্লিনিকটি সিল মেরে দেওয়া হয়।

ক্লিনিকের মালিক সৈয়দ মাকসুদুল ইসলাম মাসউদ বলেছেন, তিনি একটি বেসরকারী প্রতিষ্ঠান থেকে ডেন্টাল ডিপ্লোমা পাস করেছেন। তবে তিনি ডেন্টাল সার্জন নন। তিনি কোন সংস্থা থেকে ডিপ্লোমা পাস করেছেন তা জানতে চাইলে তিনি ফোনটি ঝুলিয়ে রাখেন।

মির্জাপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো। যুবায়ের হোসেন বলেন, জনস্বার্থে এ জাতীয় প্রতারণা ও অপরাধের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে।

এস এম এরশাদ / আরএআর / এমএস