নদী উদ্ধারে নেতৃত্ব দেয়া বিআইডব্লিউটিএর সেই কর্মকর্তাকে বদলি

আরিফ -২

Dhakaাকার আশপাশে নদী তীর উদ্ধার কার্যক্রম এর আগেও বহুবার পরিচালিত হয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) গত বছর থেকে যেভাবে অবৈধ নদী তীর স্থাপনা উচ্ছেদ করেছে, তা নজিরবিহীন। সে কারণেই বিআইডব্লিউটিএর এই উদ্যোগকে সবাই প্রশংসা করেছেন। বিভিন্ন বাধা ও হুমকি সত্ত্বেও, এই সরকারী সংস্থা পিছিয়ে যায়নি।

বিআইডব্লিউটিএর যুগ্ম পরিচালক ও Dhakaাকা নদী বন্দরের নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা একেএম আরিফ উদ্দিন বিআইডব্লিউটিএর এই ধরনের কার্যক্রমের নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য ব্যাপক আলোচনা হয়েছে। প্রভাবশালী ব্যক্তিরা তাদের স্থাপনাগুলি ভেঙে নদীর সাইটটিকে উদ্ধার করেছেন। কোনও বাধা তাঁর উচ্ছেদের প্রচার বন্ধ করতে পারেনি।

বিআইডব্লিউটিএর দায়িত্ব সম্পর্কে সচেতন এই পরিচালককে বদলি করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৯ অক্টোবর) সন্ধ্যায় তাকে Dhakaাকা নদী বন্দর-সদরঘাট থেকে মতিঝিল প্রধান কার্যালয়ে স্থানান্তর করা হয়।

বিআইডব্লিউটিএ সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

শুক্রবার (৩০ অক্টোবর) জাগো নিউজের মাধ্যমে যোগাযোগ করা হলে একেএম আরিফ উদ্দিন এই স্থানান্তর সম্পর্কে মন্তব্য করতে রাজি হননি।

বিআইডব্লিউটিএ বলছে, নিয়মিত বদলির অংশ হিসাবে তাকে সদরঘাট থেকে প্রধান কার্যালয়ে স্থানান্তর করা হয়েছে।

তবে বিআইডব্লিউটিএর কিছু নির্ভরযোগ্য সূত্র বিভিন্ন কথা বলে। তাদের মতে, বিআইডব্লিউটিএর সাম্প্রতিক গুরুত্বপূর্ণ অপারেশনটি এ পর্যন্ত 5000 টিরও বেশি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করেছে। তাদের মধ্যে ছিলেন সংসদ সদস্য, আইনজীবী ও বড় ব্যবসায়ী। এ কে এম আরিফ উদ্দিন এই সমস্ত অভিযানের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। ফলশ্রুতিতে তিনি প্রভাবশালী লোকদের উপর ক্ষুব্ধ হন।

আরিফ -২

সূত্র আরও জানায়, এর মধ্যে একটি প্রভাবশালী নদীর জায়গায় একটি বিদ্যুৎ কেন্দ্র এবং অর্থনৈতিক অঞ্চল তৈরি করেছে। একে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করায় একেএম আরিফ উদ্দিনকে বদলি করারও চাপ ছিল। ঘটনার পরে তাকে অপসারণের জন্য আরিফ উদ্দিনের বিরুদ্ধে কর্মীরাও মোতায়েন করা হয়েছিল বলে অভিযোগ রয়েছে।

এদিকে, এক বছরের দীর্ঘ অভিযানে বুড়িগঙ্গা, তুরাগ ও বালু নদীর দুটি তীরে অবৈধ কাঠামো ভেঙে ফেলা এবং উদ্ধারকৃত অঞ্চলে স্থায়ী সীমানা খুঁটি স্থাপনের কাজ চলছে।

এখন পর্যন্ত বুড়িগঙ্গা, তুরাগ ও বালু নদীর তীরে 5000 টিরও বেশি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে।

এএস / এসআর / পিআর

করোনার ভাইরাস আমাদের জীবন বদলে দিয়েছে। সময় আনন্দ এবং দুঃখে, সঙ্কটে, উদ্বেগে কাটায়। আপনি কিভাবে আপনার সময় কাটাচ্ছেন? জাগো নিউজে লিখতে পারেন। আজ পাঠান – [email protected]