বন্যার পানিতে ভেঙে গেল কালভার্ট, ভোগান্তিতে ৩০ গ্রামের মানুষ

jagonews24

টাঙ্গাইলের বাসাইলে প্রবল বন্যার পানির কারণে একটি কালভার্ট ভেঙে পড়েছে। ফলস্বরূপ, তিনটি উপজেলার প্রায় ৩০ টি গ্রামের মানুষ যোগাযোগ হারিয়েছে এবং চরম সঙ্কটে রয়েছে। বৃহস্পতিবার (২ অক্টোবর) সকালে বাসাইল পৌর শহরের দক্ষিণপাড়া গড়মারা বিল সংলগ্ন বাসাইল-নাটিপাড়া সড়কের কালভার্টটি ধসে পড়ে।

স্থানীয়দের মতে, উপজেলার সব জায়গাতেই আবার বন্যার পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলস্বরূপ, বিভিন্ন এলাকার রাস্তা ডুবে যাচ্ছে। কোথাও জলে, বাঁশের সেতুগুলিও ভাসছে। গড়মারা বিলে জলের উত্থানের কারণে বাসাইল-নাটিয়াপাড়া সড়কের কাল্টের নিচে একটি শক্তিশালী স্রোত তৈরি হয়েছিল এবং বৃহস্পতিবার সকালে হঠাৎ এটি ভেঙে যায়।

দেলদুয়ার উপজেলার আদাজান, কাঞ্চনপুর, বিলপাড়া, বালিনা, ভোড়পাড়া, হাবলা, কুর্নি, ফতেহপুর, পাটখাগুড়ি, মেহের, ভাটকুড়া, আদাবরী ও নাটিপাড়া, বার্নিসহ প্রায় ৩০ টি গ্রামের মানুষ এই রাস্তা দিয়ে যাতায়াত করত। কালভার্ট ধসের কারণে এই এলাকার লোকজন বাসাইল সদরে যাতায়াত বন্ধ করে দিয়েছে।

বাসাইলের বাটার সুপার মার্কেটের প্রিন্স ট্রেলারগুলির মালিক সোলায়মান মিয়া জানান, বাসাইলের বড় ব্যবসায়ীরা এই রাস্তায় Dhakaাকা থেকে পণ্য নিয়ে আসে এবং নিয়ে যায়। কালভার্ট ভাঙ্গা আমাদের সময় এবং ব্যয় উভয়ই বাড়িয়ে তুলবে। খুব শীঘ্রই আমরা এখানে একটি সেতু নির্মাণের দাবি করছি।

এ বিষয়ে বাসাইল উপজেলা প্রকৌশলী রোজদীদ আহমেদ বলেন, এলজিইডি ১৯৯৫ সালে পাঁচ লক্ষ টাকা ব্যয়ে এই সাড়ে চার মিটার কালভার্টটি নির্মাণ করে। এই কালভার্টটি আগে ঝুঁকিপূর্ণ হিসাবে চিহ্নিত ছিল। এবার ক্রমবর্ধমান জল এবং শক্তিশালী স্রোতের কারণে এটি ভেঙে গেছে। আমরা সেই অঞ্চলটি পরিদর্শন করেছি। এখানে ২০ মিটার দীর্ঘ সেতু নির্মাণের জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে।

আরিফ উর রহমান টগর / আরএআর / জেআইএম

করোনার ভাইরাস আমাদের জীবন বদলে দিয়েছে। আনন্দ-বেদনা, সংকট, উদ্বেগের মধ্যে সময় কেটে যাচ্ছে। আপনি কিভাবে আপনার সময় কাটাচ্ছেন? জাগো নিউজে লিখতে পারেন। আজ পাঠান – [email protected]