বৃষ্টিবিঘ্নিত ছুটির দিনেও শপিংমলে ক্রেতার ভিড়

haাকা

শুক্রবার, সকাল সাড়ে ১০ টা। নিউমার্কেটের সামনে দাঁড়িয়ে বেসরকারী ব্যাংকের কর্মকর্তা আবদুর রশিদ। তিনি রিকশা চালককে জিজ্ঞাসা করলেন, তিনি কি মোহাম্মদপুরের নুরজাহান রোডে যাবেন। ভাড়া কিছুটা বেশি হলেও তিনি গেটের অপেক্ষায় থাকা স্ত্রীকে ডেকে রিকশায় উঠতে বললেন।

আলাপকালে আবদুর রশিদ বলেন, আমি বেসরকারী খাতে কাজ করি। সপ্তাহের অন্য কোনও দিন স্ত্রীর সাথে বাজারে আসার সুযোগ নেই। ছুটিতে বর্ষাকালীন আবহাওয়া সত্ত্বেও আমাকে প্রয়োজনীয় জিনিস কিনতে আসতে হয়েছিল। বিকেলে ভালো আবহাওয়া দেখে বাড়ি ছেড়ে চলে গেলাম। তবে বৃষ্টির কারণে এখন রিকশাটি পাই না।

এ সময় নিউমার্কেটের ভিতরে থেকে আগত কয়েকজন ক্রেতা রিকশাচালককে সিএনজি চালিত অটোরিকশা ভাড়া দেওয়ার জন্য অনুরোধ করছিলেন, অন্যরা ড্রাইভারকে তার মোবাইল ফোনে পার্কিং থেকে গেটের সামনে আসতে অনুরোধ করছিলেন। । বৃষ্টি শুরুর পরে সবাই দ্রুত কেনাকাটা করে বাড়ি ফিরতে গাড়ির সন্ধান করছিল।

নিউমার্কেট, এলিফ্যান্ট রোড, ধানমন্ডি, হাতিরপুল অঞ্চল সহ নগরীর বিভিন্ন বাজারে আজ প্রচুর ক্রেতা ছিল। সকাল থেকেই অবিচ্ছিন্ন বৃষ্টিপাত এবং মেঘলা আকাশ থাকা সত্ত্বেও বিভিন্ন ছোট-বড় শপিংমল ও বাজারে ক্রেতাদের বেশ ভিড় ছিল। ব্যবসায়ীরা আরও বলেছিলেন যে বাণিজ্য খুব ভাল।

এলিফ্যান্ট রোডের এক পোশাক খুচরা বিক্রেতা বলেছিলেন যে করোনার পরিস্থিতির কারণে ছুটির দিন ছাড়া অন্য সময়ে অনেক ক্রেতা নেই। বাণিজ্যও ন্যায্য। তবে শুক্রবারের কারণে প্রচুর ক্রেতা রয়েছে এবং বিক্রিও ভাল।

haাকা

আজ সকাল থেকে আবহাওয়াজনিত কারণে শপিংমলে ক্রেতারা না থাকলেও ক্রেতারা উপস্থিত ছিলেন এবং বিক্রিও ভাল ছিল বলে তিনি জানান।

ক্রেতাদের আগমনের কারণে রাস্তায় যানবাহনের সংখ্যা অন্যান্য দিনের তুলনায় অনেক বেশি ছিল। কিছু জায়গায় অতিরিক্ত যানবাহনের কারণে ছোটখাটো ট্র্যাফিক জ্যামও হয়।

এমইউ / এমআরএম / জেআইএম