মশকনিধনে আগের কার্যক্রম ছিল লোক দেখানো : তাপস

taposh0

নগরীর অনেক জলাশয় দখল হয়ে গেছে উল্লেখ করে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, নগরীর আর কোনো জলাশয় দখল হতে দেয়া হবে না।

রোববার (১৪ জুন) রাজধানীর খিলগাঁও সিপাহীবাগ বাইতুল হুদা মসজিদ সংলগ্ন ঝিলে ও রমনা পার্কে জলাশয়ে মাছ ও হাঁস চাষের উদ্বোধনকালে মেয়র এসব কথা বলেন।

শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, আমরা জলাশয় পরিষ্কারের কাজ শুরু করব। এসব জলাশয়ের মধ্যে মাছ ও হাঁস অবমুক্ত করব। তেলাপিয়া মাছ মশার লার্ভা ধ্বংস করে। এখনও অনেক জলাশয় আছে যেগুলো পরিষ্কার করে নান্দনিক স্থানে পরিণত করব। এলাকাভিক্তিক যেসব তরুণ সংগঠন রয়েছে তাদের অনুরোধ করব আপনারা এই হাঁস ও মাছগুলো দেখভাল করবেন।

বছরব্যাপী মশকনিধন কার্যক্রম হাতে নেয়া হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, এর আগে সিটি করপোরেশনের মশকনিধনের নামে লোক দেখানো কার্যক্রম পরিচালিত হতো। মশার উপদ্রব বেশি হলে কার্যক্রম হাতে নেয়া হতো। সেটি আর হবে না, আমরা সত্যিকারের সেবা দিতে চাই। জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়েছি তাই জনগণের কাছে আমরা দায়বদ্ধ। এখন সিটি করপোরেশনের কোনো কাজে গাফলতি দেখলে আমাকে সরাসরি বলবেন, অথবা স্থানীয় কাউন্সিলরদের জানাবেন।

তিনি আরও বলেন, আগে ভোরবেলা ৮টার দিকে এক ঘণ্টা লার্ভিসাইডিং করা হতো এখন থেকে সেখানে চার ঘণ্টা করা হচ্ছে। বিকেলে যেখানে মাগরিবের দিকে এক ঘণ্টা ধোঁয়া দেয়া হতো এখন সেটা দুপুর আড়াইটা থেকে চার ঘণ্টা করা হয়েছে। আমি মনে করি আগের কার্যক্রম যেটা ছিল সেটা লোক দেখানো কার্যক্রম ছিল।

করোনাভাইরাস প্রসঙ্গে মেয়র বলেন, যেসব এলাকায় সংক্রমণের হার বেশি সেসব স্থান চিহ্নিত করে লকডাউনের কাজ শুরু করেছে সরকার। আমরাও নির্দেশনা অনুযায়ী সবাইকে নিয়ে সেটা বাস্তবায়ন করব। আমি সবাইকে বলব, নিরাপদ থাকতে হবে। আরও সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। জীবিকা অর্জন করতে হবে। সারাবিশ্ব আজ খুলে দেয়া হয়েছে। বাংলাদেশও খুলে দেয়া হয়েছে। আগে কিন্তু জীবন আর জীবন থাকলে জীবিকা হবে।

কর্মসূচির উদ্বোধনকালে ডিএসসিসির প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শরীফ আহমেদ, স্থানীয় কাউন্সিলরসহ সিটি করপোরেশনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এএস/বিএ/এমএস

.