মসজিদে হামলা : খুনি কখনও ক্ষমা পাবে না, বললেন নিহত শিশুর বাবা

নিউজিল্যান্ড

গত বছর নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে একটি মসজিদে হামলায় তিন বছরের শিশু মুকাদ ইব্রাহিম 50 জন লোকের সাথে নিহত হয়েছিল। তিনি সেই বর্বর হামলার কনিষ্ঠতম শিকার। তার বাবা আদেল ইব্রাহিম যে খুনিকে এত কম বয়সে তার প্রিয় সন্তানকে নিয়ে গিয়েছিল তাকে কখনই ক্ষমা করতে সক্ষম হবে না। কথায় কথায় আদালতে দাঁড়িয়ে তিনি এ বিষয়টি পরিষ্কার করে দিয়েছিলেন।

“আপনি আমার শিশুকে হত্যা করেছেন, দেখে মনে হচ্ছে আপনি পুরো নিউজিল্যান্ডকে হত্যা করেছেন,” বুধবার খুনি, ব্রেন্টন তারেন্টের বিরুদ্ধে ক্রাইস্টচর্চ হাইকোর্টে শুনানিতে অ্যাডেল ইব্রাহিম বলেছেন।

‘মনে রাখবেন, সত্যিকারের বিচার পরকালে তোমাদের জন্য অপেক্ষা করছে এবং এটি আরও ভয়াবহ হবে। আপনি যা করেছেন তার জন্য আমি আপনাকে কখনও ক্ষমা করব না। ‘

২৯ বছর বয়সী সাদা অস্ট্রেলিয়ান ট্রেন্টকে এই সপ্তাহে ৫১ টি হত্যা, ৪০ টি হত্যার চেষ্টা এবং একটি মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার মামলায় এই সপ্তাহে সাজা দেওয়া হবে। ইতিমধ্যে আদালতের শুনানিতে কয়েক ডজন বেঁচে যাওয়া এবং ক্ষতিগ্রস্থদের পরিবারের সদস্যরা অংশ নিয়েছেন। সকলেই তারাতকে সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

নিউজিল্যান্ড আইনে অপরাধী কারাগারে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড নিতে পারে। তবে, কোনও বিচারক ইচ্ছা করলে প্যারোল ছাড়াই যাবজ্জীবন কারাদণ্ড চাপিয়ে দিতে পারেন, যদিও এই জাতীয় শাস্তির নজির নেই নিউজিল্যান্ডে।

ইব্রাহিম দিরিয়ে প্রায় 25 বছর আগে সোমালিয়া থেকে নিউজিল্যান্ডে পাড়ি জমান। বুধবার তার প্রিয় সন্তানকে আদালতে স্মরণ করে তিনি বলেছিলেন, ‘সে পুলিশ গিয়ে খেলা করবে; বাড়িতে, তিনি ইউনিফর্মের পুলিশ সদস্য হওয়ার ভান করতেন এবং দৌড়াদৌড়ি করতেন। আমরা ভেবেছিলাম একদিন সে পুলিশ অফিসার হতে পারে। তবে সেই ভবিষ্যত কেড়ে নেওয়া হয়েছে।

“তারেন্টকে কখনও কাপুরুষোচিত কাজের জন্য মুক্তি দেওয়া উচিত নয়,” আহাদ নবী বলেছিলেন, যিনি একটি মসজিদে হামলায় তার পিতাকে হারিয়েছিলেন।

নিউজিল্যান্ড

আর এক ভুক্তভোগীর মেয়ে সারা কাসেম বলেছেন, ঘাতকের দিকে নজর রাখছেন।

15 মার্চ, 2019, ব্রেন্টন তারান্ট নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের আল নূর এবং লিনউড মসজিদগুলিতে আক্রমণ করেছিলেন। তিনি দুটি মসজিদে জুমার নামাজের সময় একটি অস্ত্র দিয়ে নির্বিচারে গুলি চালিয়েছিলেন। ফেসবুক লাইভেও আক্রমণটিকে তিনি প্রচার করেছিলেন। আক্রমণটির সরাসরি ভিডিওটি 16 মিনিটের জন্য সম্প্রচারিত হয়েছিল। সাদা আধিপত্যবাদী বিশ্বাসী তারানত উপাসকদের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত একের পর এক গুলি চালিয়ে যান। এই হামলায় ৫১ জন নিহত এবং ৪০ জন আহত হয়। নিউজিল্যান্ড সহ সারা পৃথিবীর লোকেরা এমন বর্বর আক্রমণে হতবাক হয়ে যায়।

সূত্র: রয়টার্স

কেএএ / জেআইএম