রেস্তোরাঁয় খাবারের পর বিলের সাথে মৌরি দেয় কেন?

jagonews24

আমাদের দেশে রেস্তোরাঁয় খাবার শেষে বিল দিয়ে অ্যানিস দেওয়া হয়। এটি দেওয়ার একটি কারণ আছে। রেস্তোঁরায় খাওয়ার পরে বিল দিয়ে কেন মৌরি দেওয়া হয় তা খুঁজে বের করুন।

বাড়িতে যখন কোনও অতিথি আসে, খাওয়ার পরে তার হাতে ঝাঁকুনি দেওয়ার বিষয়টি রীতি আছে। আপনি যখন আপনার প্রিয় রেস্তোরাঁয় খেতে যান, যখন খাবার শেষে বিল আসবে, তখন এটি দিয়ে একটি সুন্দর প্লেটে মৌরি দিন। মৌরি খাওয়ার পরে মন বেশ প্রাণবন্ত হয়ে ওঠে।

আয়ুর্বেদিক শাস্ত্রে স্নেহের বিভিন্ন সুবিধা বর্ণনা করা হয়েছে। মৌরি বেশ কয়েকটি ওষুধ তৈরিতেও ব্যবহৃত হয়। অ্যানাইজ চিবিয়ে খাওয়ার বিভিন্ন সুবিধাও রয়েছে। অ্যানিস একটি মুখ সতেজ হিসাবে কাজ করে। সহজেই মুখ থেকে যে কোনও গন্ধ দূর করে। এটি অন্য যে কোনও খাবার থেকে সংক্রমণের ঝুঁকিও হ্রাস করে।

মৌরি খাবার দ্রুত হজমে সহায়তা করে। কোষ্ঠকাঠিন্যও দূর হয়। মৌরিতে প্রচুর পরিমাণে ডায়েটার ফাইবার থাকে। মৌরি চিউইং গামে যে লালা নির্গত হয় তা যে কোনও খাবার হজমে সহায়তা করে।

অনেকের কোষ্ঠকাঠিন্যে সমস্যা হয়। এবং আপনি যখন কোনও রেস্তোরাঁয় যান, সেখানে মশলাদার খাবার বেশি থাকে। হজমের সমস্যা যেমন বৃদ্ধি পায় তেমনি কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যাও বৃদ্ধি পায়। এই সমস্যাগুলি এড়াতে শেষ পাতায় মৌরি দেওয়া প্রথা ছিল। অ্যানিস কেবলমাত্র রেস্তোঁরাগুলিতেই নয়, অতীতে কোনও বিবাহ বাড়িতেও দেওয়া হয়েছিল।

মৌরি পেট পরিষ্কার রাখতে সহায়তা করে। এই সবগুলির মধ্যে অন্যতম উপাদান অ্যানিস। এমনকি এটি ওষুধেও ব্যবহৃত হয়। এজন্য স্বাস্থ্যকর নিয়মের কথা মাথায় রেখে রেস্তোঁরায় খাবার শেষে মৌরি দেওয়া হয়।

jagonews24

মৌরির অন্যান্য সুবিধাও রয়েছে। মৌরিতে এক ধরণের ফাইবার থাকে যা কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়তা করে। মৌরি একটি পোকামাকড় হিসাবেও কাজ করে।

মৌরির নিয়মিত সেবন হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি হ্রাস করে। মানসিক চাপ কমাতেও সহায়তা করে। নিয়মিত মৌরি খাওয়া হজমশক্তি বাড়ায়। দৃষ্টিশক্তিও ভাল। মৌরি হ’ল ওজন কমাতে এবং বাতের ব্যথা কমাতে একটি ওষুধ।

রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে এক গ্লাস জলে আধ চামচ মৌরি গুঁড়ো মিশিয়ে খাওয়া খুব উপকারী। যাদের হাঁপানির সমস্যা রয়েছে তারা যদি প্রতিদিন মধু এবং মৌরি চিবিয়ে থাকেন তবে উপকার পাবেন।

jagonews24

যারা ধূমপান ছেড়ে দিতে চান তাদের জন্য অল্প অল্প ঘি দিয়ে আঁচে ভাজুন এবং একটি পাত্রে রাখুন। আপনি যদি সিগারেট খেতে চান তবে একটি চামচ দিয়ে ভাজা সোনালী খান। কম নেশা হবে।

এক গ্লাস জলে এক চা চামচ ভাজা মৌরি, এক চা চামচ চিনি ভিজিয়ে রাখুন। সকালে উঠে খাওয়া দাও। ডায়রিয়া এবং গ্যাস থেকে মুক্তি পান। এবং শরীর পরিষ্কার থাকবে।

এফএমএফ / এসইউ / এএ / এমকেএইচ

করোনার ভাইরাস আমাদের জীবন বদলে দিয়েছে। আনন্দ, বেদনা, সংকট, উদ্বেগ নিয়ে সময় কাটায়। আপনি কিভাবে আপনার সময় কাটাচ্ছেন? জাগো নিউজে লিখতে পারেন। আজ পাঠান – [email protected]