লংমার্চে চার স্থানে হামলা করেছে ছাত্রলীগ, সমাবেশে বক্তারা

jagonews24

Dhakaাকা থেকে শুরু হওয়া বামফ্রন্টের লংমার্চ নোয়াখালীর জনসভা দিয়ে শেষ হয়েছিল। ধর্ষণ ও দায়মুক্তির প্রতিবাদে শনিবার (১৮ অক্টোবর) সন্ধ্যা 4 টা থেকে সন্ধ্যা 6 টা পর্যন্ত নোয়াখালীর মাইজদি জেলা শহরের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বরে লংমার্চ অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে বক্তারা বলেছিলেন যে এই সরকার ধর্ষণকারীদের লালন-পালন করছে। যারা ধর্ষণকারীদের উত্থাপন করছে তাদের বিচার চাই। ছাত্রলীগ শান্তিপূর্ণ লংমার্চে ফেনী সহ চারটি জায়গায় হামলা করেছে। তুমি আর কত আমাদের মেরে ফেলবে? এ দেশের যুবকরা লড়াই করবে। আমাদের আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।

বক্তারা আরও বলেছিলেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পদত্যাগ না করলে ধর্মঘট অবরোধের মতো বৃহত্তর কর্মসূচি দেওয়া হবে। এর আগে ১৯ অক্টোবর সারাদেশে বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হবে এবং ২১ শে অক্টোবর মহাসড়ক ও রেলপথ অবরোধ করা হবে।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন নোয়াখালী লংমার্চের সমন্বয়ক ও জেলা উদীচীর শিল্পী গোস্তি ও চরণ সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নোয়াখালী পলাশের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোল্লা হাবিবুর রসুল মামুন। , বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের গোলাম মোস্তফা এবং বাংলাদেশ মহিলা মুক্তি সীমা দত্ত।

মিজানুর রহমান / এএম / জেআইএম

করোনার ভাইরাস আমাদের জীবন বদলে দিয়েছে। সময় আনন্দ এবং দুঃখে, সঙ্কটে, উদ্বেগে কাটায়। আপনি কিভাবে আপনার সময় কাটাচ্ছেন? জাগো নিউজে লিখতে পারেন। আজ পাঠান – [email protected]