লঞ্চে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়, বিক্ষোভের মুখে টাকা ফেরত

চাঁদপুর

চাঁদপুর-waterাকা নৌপথে কোনও ঘোষণা ছাড়াই লঞ্চের ভাড়া বাড়ানো হওয়ায় লঞ্চ যাত্রীদের মধ্যে অসন্তোষ দেখা দিয়েছে।

লঞ্চের টিকিটে আগের ভাড়া সিল করে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হচ্ছে। ফলস্বরূপ, লঞ্চ কর্মীরা নিয়মিত যাত্রীদের সাথে অতিরিক্ত ভাড়া নিয়ে কথা বলছেন।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে at টায় চাঁদপুরের জন্য এমভি সোনার তারি -৩ লঞ্চ Dhakaাকা ছেড়ে যায়। লঞ্চটিতে যাত্রী যাত্রীদের অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করার জন্য রাত ৯ টায় চাঁদপুর লঞ্চ ডকের সোনার তরী -৩ লঞ্চে কাউন্টারের সামনে যাত্রীরা প্রতিবাদ করেন। পরে যাত্রীদের চাপের মধ্যে দিয়ে লঞ্চ কর্তৃপক্ষকে টাকা ফেরত দিতে বাধ্য করা হয় বলে জানিয়েছেন লঞ্চের কয়েকজন যাত্রী।

চাঁদপুর-waterাকা নৌপথে লঞ্চটিতে ভ্রমণরত কয়েকজন যাত্রী জানিয়েছেন, লঞ্চ মালিক কর্তৃপক্ষ এখন ভাড়া বাড়িয়ে যাত্রীদের যতটা চান চার্জ করছে। দেশান্তর নামে অভিনব টিকিট ২৫০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ২0০ টাকা করা হয়েছে। এ ছাড়া দ্বিতীয় ও তৃতীয় শ্রেণি সহ সকলকে কল করে টাকা বাড়ানো হয়েছে।

যাত্রীরা আরও বলেছিলেন যে সরকারের কাছ থেকে কোনও নির্দেশ বা পূর্বের কোনও ঘোষণা ছাড়াই এইভাবে আমাদের কাছ থেকে ভাড়া আদায় করা একেবারেই অনিয়মিত। এছাড়াও কিছু লঞ্চের কর্মীরা আমাদের সাথে খুব খারাপ ব্যবহার করে। লঞ্চটির টিকিট কিনে যাত্রীদের চরম হয়রানির শিকার করা হচ্ছে।

লঞ্চ কর্মীরা যখন নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে বেশি আদায় করেন, তখন যাত্রী ও কর্মীদের মধ্যে অনেক বিতর্ক রয়েছে।

লঞ্চ ভাড়া অতিরিক্ত ছিল তা স্বীকার করে, লঞ্চের মালিক প্রতিনিধি বিপ্লব সরকার বলেছিলেন যে কিছু লঞ্চ একই কাজ করছে। তবে সরকার ভাড়া ১৫% বাড়িয়েছে। যা লঞ্চ যাত্রীদের অনেকেই জানেন না। এ ছাড়া লঞ্চের টিকিটে আগের ভাড়া সিল করে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হচ্ছে। ফলস্বরূপ, লঞ্চ কর্মীদের অতিরিক্ত ভাড়া নিয়ে যাত্রীদের সাথে অবিচ্ছিন্ন আলোচনা চলছে।

এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সহযোগিতা চেয়েছেন যাত্রীরা

এমএএস / জেআইএম