শতবর্ষী বৃদ্ধাকে ঘর করে দিল ‘ওয়াব’

রংপুর-পলিস-সুপার

ফেসবুক ভিত্তিক স্বেচ্ছাসেবক প্ল্যাটফর্ম ওয়ে আর আর বাংলাদেশ (ডাব্লুএইচ) রংপুরে শতবর্ষের জন্য একটি বাড়ি তৈরি করেছিল। রংপুরের পুলিশ সুপার বিপ্লব কুমার সরকার বুধবার (১৯ আগস্ট) দুপুরে রংপুরের বসুনিয়াপাড়ার আজিজুল্লাহ গ্রামে সালমা বেগম ও তার পরিবারের কাছে বাড়ির চাবি হস্তান্তর করেন।

এ সময় ওয়াবের প্রশাসক সহকারী পুলিশ সুপার আশরাফুল আলম পলাশ এবং রংপুর জেলা পুলিশের অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

জনপ্রিয় ফেসবুক প্ল্যাটফর্ম ওয়েইআর বাংলাদেশ (ডাব্লুএইচ) এর সদস্য উম্মে হাবিবা বুড়ির পরিবারের জন্য সাহায্যের আবেদন করেছিলেন, যা ডাব্লুএবির প্রতিষ্ঠাতা পুলিশ সদস্য এসএম আকবর পেয়েছিলেন। তিনি বিষয়টি ডাব্লুএবির প্রশাসক প্যানেলের সদস্য ও রংপুর জেলার সহকারী পুলিশ সুপার আশরাফুল আলম পলাশের কাছে জানিয়েছেন। পলাশ বিষয়টি নিয়ে রংপুর পুলিশ সুপার বিপ্লব সরকারকে অবহিত করেন। তাত্ক্ষণিকভাবে বৃদ্ধ মহিলার পরিবার চিকিত্সার জন্য পুরো মাসের মূল্যমানের খাবার এবং নগদ প্রদান করে। পরে একটি টিনের বাড়ি ডাব্লুএইচ সদস্যদের অর্থায়নে বৃদ্ধ মহিলার পরিবারকে উপহার দেওয়া হয়েছিল।

স্থানীয়রা জানান, সালমা বেগমের স্বামী অনেক আগে মারা গিয়েছিলেন। তার আট সন্তানের মধ্যে সাতটি জিজ্ঞাসাবাদ করেনি। তাদের মধ্যে অবশ্য একজন -০ বছর বয়সী অসুস্থ ছেলে এবং তার স্ত্রী। তারা বেশিরভাগ দিন না খেয়ে কাটায়। তারপরেও তিনি বার্ধক্য ভাতা বা বিধবা ভাতা পাননি।

স্থানীয় ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সিরাজুল ইসলাম বলেন, এর আগে তাঁর ছেলে বার্ধক্য ভাতার জন্য আমার কাছে এসেছিলেন তবে আমি জানতাম না যে তাঁর মা বেঁচে আছেন। এখন থেকে নিয়মিত তাঁর সম্পর্কে খোঁজখবর রাখব।

রংপুরের পুলিশ সুপার বিপ্লব কুমার বলেছিলেন যে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো সোয়াবের কাজ। আমি সমাজের অসহায় মানুষের পাশে আছি এবং ভবিষ্যতেও থাকব।

ফেসবুক গ্রুপ ওয়ে আর বাংলাদেশ (ডাব্লুএবি) এরই মধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। কিছু দিন আগে তারা ফরিদপুর ও খুলনায় দুটি পরিবারের জন্য কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেছিল।

উল্লেখ্য যে পুলিশ সদস্য এসএম আকবরের হাত ধরে ২০১ 2016 সালে ওয়াবের যাত্রা শুরু হয়েছিল। প্রতিষ্ঠার মাত্র দুই বছরে এই গ্রুপের সদস্য সংখ্যা পাঁচ লাখ ছাড়িয়েছে।

গ্রুপটির প্রতিষ্ঠাতা এস এম আকবর বলেছিলেন যে ফেসবুক যদি বিভিন্ন স্তরের মানুষ, বিভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি, পথ এবং পেশার মানুষকে একত্রিত করতে পারে তবে এটি একটি দুর্দান্ত প্ল্যাটফর্ম হতে পারে। সেই পরিকল্পনা থেকেই গ্রুপের কার্যক্রম শুরু করেছি। বৃদ্ধা মায়ের পাশে দাঁড়াতে পেরে আমাকে মনের প্রশান্তি দিচ্ছে।

জিতু কবির / আরআর / পিআর