শুভ্র’র পরিবারের খোজঁখবর নিতে তার বাড়িতে গেলেন বাবু

jagonews24

গৌরীপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদুর রহমান শুভ্রকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে জিজ্ঞাসা করতে তার বাড়িতে গিয়েছিলেন কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক আফজালুর রহমান বাবু।

শনিবার (২৪ অক্টোবর) বিকেলে তিনি গৌরীপুর পৌর কবরস্থানে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে মাসুদুর রহমান শুভরের সমাধিতে যান।

এ সময় কবরে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে তিনি বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে অংশ নেন।

এর আগে আফজালুর রহমান বাবু দুপুর ২ টার দিকে শুভ্রর হত্যার প্রতিবাদে স্বেচ্ছাসেবক লীগের একটি বিক্ষোভ মিছিলে যোগ দেন।

jagonews24

পরে আফজালুর রহমান বাবু মৃত শুভ্রের পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানাতে কালীপুর এলাকায় তার বাড়িতে যান। এ সময় তাঁর সাথে ছিলেন আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মেজবাহ-উল-হোসেন সাচ্চু, সহ-সভাপতি মজিবুর রহমান স্বপন, যুগ্ম সম্পাদক মোবাশ্বের চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক আরিফুর রহমান টিটু, নাফিউল করিম নাফা, ময়মনসিংহ জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নুরুজ্জামান খোকন প্রমুখ। নেতারা।

ঘটনাচক্রে, মাসুদুর রহমান ১৮ আগস্ট (শনিবার) রাত সাড়ে দশটার দিকে গৌরীপুর উপজেলা সদরের পান মহলে একটি চায়ের দোকানে তাঁর সহযোগীদের সাথে চা খাচ্ছিলেন। এ সময় গৌরীপুর উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক ও মৈলাকান্দা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রিয়াদুজ্জামান রিয়াদের নেতৃত্বে দুটি সিএনজি নিয়ে ৮-১০ সন্ত্রাসী উপস্থিত হয় এবং তাকে আক্রমণ করে।

jagonews24

এ সময় শুভ্র ও তার দুই সহযোগী দুর্ঘটনাক্রমে কুপিয়ে আহত হন। পরে মাসুদুর রহমান শুভ্রকে গুরুতর অবস্থায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

পরে ১৮ ই অক্টোবরে সকালে পুলিশ রিয়াদুজ্জামান রিয়াদ ও জাহাঙ্গীর আলম, রাসেল ও মজিবুরকে জেলার তারাকান্দা গাছা এলাকা থেকে মাইলাকান্দা ইউনিয়নের কাউরাট থেকে গ্রেপ্তার করে।

নিহতের ছোট ভাই আবিদুর রহমান সোমবার (১৯ অক্টোবর) রাত দশটার দিকে পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মেয়র সৈয়দ রফিকুল ইসলামসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

jagonews24

গৌরীপুর পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মেয়র সৈয়দ রফিকুল ইসলাম গৌরীপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদুর রহমান শুভ্র হত্যার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে তার দলীয় পদ থেকে মুক্তি পেয়েছেন।

এদিকে শুক্রবার (২৩ অক্টোবর) শুভ্র হত্যা মামলার অন্যতম আসামি নেত্রকোনার মোহনগঞ্জ হাওর এলাকা থেকে খায়রুলকে গ্রেপ্তার করে ডিবি পুলিশ।

শনিবার (২৪ অক্টোবর) দুপুরে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মাহবুবা আক্তার চতুর্থ আমলী কোর্টে ১4৪ টি বিবৃতিতে এই হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার বিষয়টি স্বীকার করেছেন। স্বীকারোক্তির পরে আদালতের আদেশে খায়রুলকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছিল।

এমএএস / জেআইএম

করোনার ভাইরাস আমাদের জীবন বদলে দিয়েছে। আনন্দ, বেদনা, সংকট, উদ্বেগ নিয়ে সময় কাটায়। আপনি কিভাবে আপনার সময় কাটাচ্ছেন? জাগো নিউজে লিখতে পারেন। আজ পাঠান – [email protected]