সব ঝুলন্ত তার নামিয়ে ফেলা হবে : মেয়র আতিকুল

আতিক

Dhakaাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেছিলেন, ‘তারের ধ্বংসাবশেষের ফলে শহরের সৌন্দর্য নষ্ট হচ্ছে। তাই আগামী এক বছরে Dhakaাকার সমস্ত ঝুলন্ত তারের নামানো হবে। ‘

তিনি বলেছিলেন, ‘যদি এনটিটিএন (দেশজুড়ে টেলিযোগাযোগ ট্রান্সমিশন নেটওয়ার্ক) তারা তাদের কাজ না করে, আমরা সিটি কর্পোরেশন থেকে আমাদের ড্রেনের নীচ থেকে পাইপ করব। তারা তাকে সেই পাইপের মধ্য দিয়ে নিয়ে যাবে। তারা এর জন্য আমাদের একটি নির্দিষ্ট ফি প্রদান করবে। সংস্থাগুলি আমাদের প্রস্তাবে সম্মত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২ অক্টোবর) গুলশান -২ থেকে তাকে অপসারণের পূর্ব-ব্যবস্থাপনার অপারেশনের অংশ হিসাবে তিনি এই মন্তব্য করেন।

মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেছিলেন, ‘বাংলাদেশ টেলিযোগযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি), কেবলল অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (সিওএবি), ন্যাশনাল ওয়াইড টেরেস্ট্রিয়াল ট্রান্সমিশন নেটওয়ার্ক (এনটিটিএন), ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার্স অ্যাসোসিয়েশন (আইএসপিএ) সকলেই রাজধানী inাকায় তারের ঝুলতে জড়িত। এই ঝুলন্ত তারের সাথে আমার যতবার সভা হচ্ছে, একটি সংস্থা অন্যটিকে দোষ দেয়। তবে তারা সবাই দায়বদ্ধ। ‘

“তারা 10 বছরে এনটিটিএন লাইসেন্স নিয়ে কিছুই করেনি,” তিনি বলেছিলেন। বিটিআরসি হ’ল নিয়ন্ত্রক সংস্থা, তবে তারা এটি তদারকি করেনি।

ডিএনসিসির মেয়র বলেন, “সাধারণ গ্রাহকরা ঝুলন্ত তারগুলি অপসারণে যাতে ক্ষতিগ্রস্থ না হন সেদিকে আমরা যত্ন নিচ্ছি।”

তিনি বলেছিলেন, ‘অনেক বাবা-মা আমাকে বলেছিলেন যে তাদের সন্তানেরা ঘরে বসে ইন্টারনেটে ক্লাস করে। এর জন্য, সংস্থাগুলি আমার কাছ থেকে 7 দিন নিয়েছে যাতে তারা মোড় বা ক্রসিংগুলিতে তারগুলি না কাটায়। এখন কেবল মূল সড়কই কেটে ফেলা হচ্ছে। ‘

এএস / এফআর / পিআর

করোনার ভাইরাস আমাদের জীবন বদলে দিয়েছে। আনন্দ, বেদনা, সংকট, উদ্বেগ নিয়ে সময় কাটায়। আপনি কিভাবে আপনার সময় কাটাচ্ছেন? জাগো নিউজে লিখতে পারেন। আজ পাঠান – [email protected]