সিনহা হত্যা : ওসি প্রদীপসহ ৯ পুলিশ আদালতে

কক্সবাজারের

প্রাক্তন সেনা কর্মকর্তা সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যার ঘটনায় তিন কর্মকর্তাসহ আটজন পুলিশ সদস্যকে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। মামলার প্রধান আসামি লিয়াকতসহ আট আসামিকে কক্সবাজার আদালতে তোলা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৮ আগস্ট) বেলা সোয়া চারটার দিকে আটজন অভিযুক্তকে কয়েকটি পুলিশ গাড়িতে কড়া নিরাপত্তায় আদালতে আনা হয়েছিল।

তারা হলেন: বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক লিয়াকত আলী, উপ-পরিদর্শক (এসআই) নন্দ দুলাল রক্ষিত, সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) লিটন মিয়া, সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) টুটুল, কনস্টেবল সাফানুর করিম, কামাল হোসেন, আবদুল্লাহ আল মামুন এবং বিচারপতি মো। এর মধ্যে ওসি প্রদীপ তার অসুস্থতার কারণ দেখিয়ে আগে ছুটিতে গেছেন, তবে বাকিরা এখনও পুলিশ লাইনে রয়েছেন।

এদিকে, বিকেল ৫ টার দিকে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ হাসপাতালে আসার পরে গ্রেপ্তার হওয়া টেকনাফের প্রত্যাহারকৃত ওসি প্রদীপ কুমার দাসকেও কক্সবাজার আদালতে তোলা হয়েছে। কক্সবাজার আদালত প্রাঙ্গণে কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা কঠোর করা হয়েছে। পুলিশের পাশাপাশি গোয়েন্দা সংস্থাগুলির উপস্থিতি চিত্তাকর্ষক। মেজর সিনহা হত্যার অভিযুক্তকে আদালতে হাজির করতে আদালত চত্বরে বিপুলসংখ্যক লোক জড়ো হয়েছে।

আসামিদের আদালত কারাগারে রাখা হয়েছে। পুরো আদালত অঞ্চলটি পুলিশ দ্বারা আটকানো হওয়ায়, মিডিয়া কর্মীরা তাদের থাকার জায়গা বা যানবাহন থেকে নামার কোনও ছবি তুলতে পারেনি।

কক্সবাজারের

সিংহা হত্যা মামলার দ্বিতীয় আসামি টেকনাফ পুলিশের ওসি প্রদীপ কুমার দাসকে বৃহস্পতিবার বিকেলে চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ সদর দফতরে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়ার সময় পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছিল। সেখান থেকে দুপুর ২ টার দিকে পুলিশ তাকে কক্সবাজারে নিয়ে যায়। বিকেল ৫ টার দিকে তাকে নিয়ে পুলিশ কক্সবাজারে পৌঁছায়।

সূত্র জানায়, ওসি প্রদীপ আদালতে আসার আধ ঘন্টা আগে হত্যা মামলার মূল আসামি লিয়াকতসহ আটজনকে কড়া পাহারায় একই আদালতে আনা হয়েছিল। বুধবার (৫ আগস্ট) আট আসামি পুলিশে আত্মসমর্পণ করেছেন।

কক্সবাজারের

এর আগে বুধবার রাত দশটায় মেজর সিনহার বোনের দায়ের করা হত্যা মামলাটি টেকনাফ থানায় নথিভুক্ত করা হয়। সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়ার একই দিন বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কোর্ট -৩ টেকনাফের বিচারক তামান্না ফারহরের আদালতে অভিযোগ দায়ের করেন। পরে আদালত টেকনাফ থানাকে এটি মামলা হিসাবে নিবন্ধ করার নির্দেশনা দেয়। এছাড়াও মামলার তদন্ত র‌্যাব -15 এর অধিনায়ককে দেওয়া হয়েছিল।

সিনহার বোনের দায়ের করা মামলায় বাহারছড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক লিয়াকতকে প্রধান আসামি করা হয় এবং টেকনাফ পুলিশ প্রত্যাহার করে ওসি প্রদীপ কুমার দাসকে দ্বিতীয় আসামি করা হয়।

কক্সবাজারের

শুক্রবার (৩১ আগস্ট) রাত সাড়ে ১০ টার দিকে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে প্রাক্তন মেজর সিনহা রাশেদ খানকে পুলিশ গুলি করে হত্যা করে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের জন ও সুরক্ষা বিভাগ চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মোহাম্মদ মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে একটি উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। একইভাবে টেকনাফের বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ লিয়াকত আলী সহ ১৮ জন পুলিশ সদস্যকে তদন্তের স্বার্থে প্রত্যাহার করা হয়েছে। ইতিমধ্যে সমস্ত আসামিকে আদালতে তোলা হয়েছে।

সাeedদ আলমগীর / এএম / জেআইএম