সেনাবাহিনীর ৯ ইউনিট এবং একটি প্রতিষ্ঠানকে জাতীয় পতাকা প্রদান

সেনা -১

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিটিসির মাধ্যমে নয়টি ইউনিট এবং বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর একটি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটকে জাতীয় পতাকা প্রদান করেছেন।

শনিবার বিকেলে সাভার সেনানিবাসে নবম পদাতিক বিভাগের তত্ত্বাবধানে ভিডিও টেলিযোগাযোগের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী প্রধান অতিথি হিসাবে যোগদান করেন।

প্রধানমন্ত্রী তার মূল্যবান বক্তৃতায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দ্বারা প্রতিষ্ঠিত সেনাবাহিনীকে একটি প্রতিষ্ঠিত, সুসংহত ও সজ্জিত বাহিনী হিসাবে গড়ে তোলার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছিলেন। তিনি বিভিন্ন বিপর্যয় মোকাবেলায় এবং আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সেনাবাহিনীর ত্যাগ এবং দেশ গঠনে এর অসামান্য অবদানের কথা স্মরণ করেছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী আশাবাদ ব্যক্ত করেন যে নয়টি জাতীয় মানের ইউনিট এবং একটি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট তাদের গৌরবময় traditionতিহ্য অব্যাহত রাখবে এবং সেনাবাহিনীর একটি সজাগ ইউনিট হিসাবে তাদের অবস্থানকে একীভূত করবে এবং শক্তিশালী করবে।

পরে সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে বিশেষ অতিথি হিসাবে ইউনিট প্রধানদের কাছে জাতীয় পতাকা উপস্থাপন করেন।

ইউনিটগুলি হ’ল: 1,3,6,7 ইঞ্জিনিয়ার ব্যাটালিয়ন, অ্যাডহক 11 বীর (যান্ত্রিকীকরণ), 12,13,15 বীর (সমর্থন ব্যাটালিয়ন), 59 ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্ট (সমর্থন ব্যাটালিয়ন)।

সাভার সেনানিবাসের মিলিটারি পুলিশ সেন্টার এবং স্কুল কর্পস-এ এ উপলক্ষে একটি মনোজ্ঞ প্যারেড অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর চিফ অফ আর্মি স্টাফ জেনারেল আজিজ আহমেদ নয়টি জাতীয় মানের ইউনিট এবং একটি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের সদস্যদের অংশগ্রহণে কুচকাওয়াজ উপভোগ করেন।

জিওসি এবং নবম পদাতিক বিভাগের এরিয়া কমান্ডার মেজর জেনারেল সাইফুল আবেদীন এবং সেনাবাহিনীর seniorর্ধ্বতন কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

এ ছাড়া দুর্যোগ পরিচালনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ড। এনামুর রহমান, Dhakaাকা রেঞ্জের ডিআইজি হাবিবুর রহমান, Dhakaাকা পুলিশ সুপার মারুফ সরদার, Dhakaাকা জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাইদুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

আল-মামুন / এমএএস / পিআর

করোনার ভাইরাস আমাদের জীবন বদলে দিয়েছে। আনন্দ, বেদনা, সংকট, উদ্বেগ নিয়ে সময় কাটায়। আপনি কিভাবে আপনার সময় কাটাচ্ছেন? জাগো নিউজে লিখতে পারেন। আজ পাঠান – [email protected]