স্বেচ্ছাসেবা : জাতীয় নীতিমালা তৈরির আশ্বাস এলজিআরডি মন্ত্রীর

jagonews24

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় (এলজিআরডি) মন্ত্রী তাজুল ইসলাম আশা করছেন দেশের স্বেচ্ছাসেবীদের জাতীয় কাঠামোর আওতায় আনতে এবং টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্য নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে। তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেছিলেন যে তাঁর মন্ত্রক স্বেচ্ছাসেবীর নীতিমালা তৈরির জন্য কাজ করবে।

মন্ত্রী এই কথাটি ফেসবুকের ‘সামাজিক-অর্থনৈতিক রূপান্তর, যুব ও কোভিড-১৯-এর পরে স্বেচ্ছাসেবক’ শীর্ষক একটি লাইভ প্রোগ্রামে একথা বলেন। অনুষ্ঠানটি ইউনাইটেড নেশনস ভলান্টিয়ার্স (ইউএনভি) বাংলাদেশ এবং অপরাজিত বেঙ্গল আয়োজন করেছিল।

আলোচনায় অতিথির মধ্যে ছিলেন সুনতানা আফরোজ, সচিব ও সরকারী বেসরকারী অংশীদারিত্ব কর্তৃপক্ষের চিফ এক্সিকিউটিভ, যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রনালয়ের সচিব আক্তার হোসেন, জল এইড বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর হাসিন জাহান এবং ইউএনভি কান্ট্রি কো-অর্ডিনেটর আখতার উদ্দিন। বাংলাদেশ। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন অদম্য বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা ও সম্পাদক মাহমুদ মেনন।

মন্ত্রী তাজুল ইসলাম তার আলোচনায় বলেন, এলজিআরডি মন্ত্রকের নেতৃত্বে একটি আন্তঃমন্ত্রণালয় কমিটি গঠন করা হবে। তিনি বলেন, তিনি স্বেচ্ছাসেবীর বিষয়ে নীতি বা কাঠামো তৈরি করতে ইউএনভি বাংলাদেশ ও সংশ্লিষ্ট সংস্থার সাথে কাজ করবেন।

সুলতানা আফরোজ উন্নয়নের মূলধারায় স্বেচ্ছাসেবীর গুরুত্বের উপর জোর দিয়েছিলেন। তিনি সরকারী ও বেসরকারী খাতে স্বেচ্ছাসেবাকে সচল করার নীতিমালা তৈরির উপর জোর দিয়েছিলেন।

যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সচিব আক্তার হোসেন বলেছেন, সরকার যুবকদের দক্ষতা বাড়াতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে। তিনি তার পরিচর্যায় তাঁর পূর্ণ সমর্থন দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছিলেন।

হাসিন জাহান ও আক্তার উদ্দিন বলেছেন, স্বেচ্ছাসেবীদের একটি অনলাইন ডাটাবেস তৈরি করা দরকার। স্বেচ্ছাসেবীর সম্ভাবনা কাজে লাগিয়ে টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্য অর্জন করা সম্ভব বলে তারা মন্তব্য করেছিলেন।

মাহমুদ মেনন বলেছিলেন যে স্বেচ্ছাসেবক ও স্বেচ্ছাসেবীর কাজের সংবাদ প্রকাশ করতে তিনি তাঁর পাশে ছিলেন।

প্রোগ্রামটির মিডিয়া পার্টনার ছিলেন বার্তা 24 ডটকম।

এফআর / এমএস