১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে সাংসদ নিক্সনের পক্ষে মিছিল

jagonews24

ফরিদপুরের সদরপুরে ফরিদপুর -৪ আসনের স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য মজিবুর রহমান নিক্সনের পক্ষে একটি শোভাযাত্রা হয়েছে, ১৪৪ ধারা লঙ্ঘন করে। উপজেলা প্রশাসন সদরপুর উপজেলা পরিষদ কমপ্লেক্স সহ এক বর্গকিলোমিটার জায়গার জন্য ১৪৪ ধারা জারি করেছে। , শনিবার সকাল 9 টা থেকে 24 ঘন্টা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও সদরপুর সরকারী কলেজ।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে, পুলিশ বেঞ্চ পেতে ১৪৪ টি ক্যাচমেন্ট এরিয়া জুড়ে রাস্তা অবরোধ করে। সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে সকাল সাড়ে দশটার দিকে ভাঙ্গা উপজেলার নুরাল্লাগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ শাহিন আলম সাহাবুলের নেতৃত্বে শতাধিক লোকের একটি মিছিল সদরপুর উপজেলা সদরে উপস্থিত হয়।

মিছিলকারীরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে রোড বেঞ্চের ব্যারিকেড ভেঙে ১৪৪ ধারা লঙ্ঘন করে উপজেলা পরিষদ চত্বরের দিকে এগিয়ে যায়। পুলিশ ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার কার্যালয়ের সামনে মিছিলটি অবরোধ করে। পরে মিছিলটি ছত্রভঙ্গ হয়।

কাজী জাফরউল্লাহর সমর্থিত আওয়ামী লীগ কর্মীরা শনিবার ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক অতুল সরকারের প্রতিবাদে এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মুহম্মদ আল আমিনকে অপমান ও হুমকি প্রদান এবং নিক্সনের সংসদ সদস্য জেসমিন সুলতানার সাথে দুর্ব্যবহারের অভিযোগে নিকসনের বিচারের দাবিতে শনিবার উপজেলা পরিষদের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন। দ্বারা

গত বৃহস্পতিবার বিকেলে সদরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু আলম রেজা এই কর্মসূচিটি পরিচালনার জন্য ইউএনও পুরবী গোল্ডারের কাছে লিখিত আবেদন করেন।

অন্যদিকে, এমপি নিক্সন সমর্থিত আরেকটি দল একই সময়ে নিক্সনের ‘মিথ্যা’ মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে একই জায়গায় একটি পাল্টা হিউম্যান চেইন প্রোগ্রাম গ্রহণ করেছে। নিক্সনের পক্ষে, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদরপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী শফিকুর রহমান শুক্রবার বিকেলে সদরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কর্মসূচি পালনের জন্য আবেদন করেন।

একই সময়ে একই জায়গায় দুটি বিবাদমূলক কর্মসূচির কারণে সদরপুরে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এ প্রসঙ্গে শনিবার সকাল ৯ টা থেকে উপজেলা প্রশাসন ২৪ ঘণ্টার জন্য ১৪৪ ধারা জারি করে।

সদরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার পূরবী গোল্ডার জানান, দুটি বিবাদমূলক কর্মসূচির কারণে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি খারাপ হতে পারে বলে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। সকাল থেকেই উভয় দলের সমর্থকরা তাদের কর্মসূচি পালন করতে উপজেলা পরিষদের সামনে জড়ো হতে থাকেন। পরে পুলিশ তাদের জায়গা থেকে সরিয়ে দেয়।

সদরপুরে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী শফিকুর রহমান, যিনি এমপি নিক্সন সমর্থিত, বলেছেন শনিবার সকালে এমপি নিকসন চৌধুরীর বিরুদ্ধে দায়ের করা চরম মিথ্যাচার ও মামলা-মোকদ্দমার প্রতিবাদে একটি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছিল। আমরা শান্তিপূর্ণ সমাবেশের জন্য সমস্ত প্রস্তুতি নিয়েছি। প্রশাসন 144 ধারা জারি করায় আমরা আমাদের কর্মসূচি পালন করতে পারিনি।

১০ ই অক্টোবর চরভদ্রাসন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। অভিযোগ করা হয় যে এমপি নিকসন চৌধুরী জেলা প্রশাসকের কাছে নির্বাচন সম্পর্কে অশালীন মন্তব্য করেছিলেন এবং চরভদ্রাসন উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবং একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে অবমাননাকর ভাষা, ভয় দেখানো ও হুমকি দেওয়ার জন্য বলেছিলেন।

বৃহস্পতিবার সিনিয়র জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা নবাবুল ইসলাম এমপি নিক্সন চৌধুরীর বিরুদ্ধে চারভদ্রাসন থানায় নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে মামলা দায়ের করেছেন।

যাইহোক, ফরিদপুর -৪ সংসদীয় আসনটি ফরিদপুরের ভাঙ্গা, সদরপুর ও চরভদ্রাসন তিনটি উপজেলা নিয়ে গঠিত। এই আসনের আগে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফরউল্লাহ এমপি ছিলেন। 2014 এবং 2016 সালে, নিক্সন পরপর দুটি নির্বাচনে কাজী জাফরউল্লাহকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে পরাজিত করেছিলেন এবং এমপি নির্বাচিত হন।

২০১৪ সালে আওয়ামী লীগের প্রার্থী কাজী জাফরউল্লাহকে পরাজিত করার পরে নিক্সন এমপি নির্বাচিত হওয়ার পরে কাজী জাফরউল্লাহ ও নিকসনের নেতৃত্বে তিনটি উপজেলা বিভক্ত হয়েছিল।

নিক্সনবিরোধী কাজী জাফরউল্লাহ সমর্থিত গোষ্ঠীর উপজেলা পর্যায়ের নেতা উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ফকির আবদুস সাত্তার বলেছেন, গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবিতে উপজেলা আওয়ামী লীগ শনিবার সকালে সদরপুরে একটি বিক্ষোভ সমাবেশ করার আহ্বান জানিয়েছিল। স্থানীয় সংসদ সদস্য মজিবুর রহমান নিকসন চৌধুরী। কিন্তু প্রশাসন ১৪৪ ধারা জারি করার সাথে সাথে আমরা নির্ধারিত কর্মসূচি পালন করা থেকে বিরত থাকি।

বি কে সিকদার সজল / এমএএস / এমকেএইচ

করোনার ভাইরাস আমাদের জীবন বদলে দিয়েছে। সময় আনন্দ এবং দুঃখে, সঙ্কটে, উদ্বেগে কাটায়। আপনি কিভাবে আপনার সময় কাটাচ্ছেন? জাগো নিউজে লিখতে পারেন। আজ পাঠান – [email protected]