‘৭৫ পরবর্তীতে বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যার অভিভাবক ছিলেন প্রণব মুখার্জি’

ctg- (2) .jpg

‘ভারতের প্রয়াত রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি বাংলাদেশের মুক্তি সংগ্রাম ও স্বাধীন বাংলাদেশের রাজনীতির বিভিন্ন অধ্যায়ে historicতিহাসিক ভূমিকা পালন করেছিলেন। ১৯ 197৫ সালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং তার পরিবারের নির্মম হত্যার পরে, যখন তত্কালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানাকে আশ্রয় দিয়ে বঙ্গবন্ধু এবং তার পরিবারের প্রতি প্রেমের এক অনন্য নজির স্থাপন করেছিলেন, প্রণব মুখার্জি ছিলেন বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যার অভিভাবক। – প্রাক্তন মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ হোসেন এমপি বলেছেন।

শনিবার (৫ সেপ্টেম্বর) ভারতের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রয়াত প্রণব মুখোপাধ্যায়ের স্মরণে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সভাপতি আলী আব্বাস ও যুগ্ম সম্পাদক নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে এস রহমান হলে অনুষ্ঠিত বৈঠকে ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বলেছিলেন, “তিনি আমাদের মুক্তিযুদ্ধকেই নয়, গণতান্ত্রিক রাজনীতির বিভিন্ন অনুষ্ঠানেও বিশেষ অবদান রেখেছিলেন। স্বাধীন বাংলাদেশ। ” বিশেষত যখন ওয়ান / ইলেভেনের সময় সেনা প্রধান জেনারেল মoinন ইউ আহমেদ ছয় দিনের ভারত সফর করেছিলেন, প্রণব মুখোপাধ্যায় বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে শেখ হাসিনা এবং খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছিলেন। সব মিলিয়ে বঙ্গবন্ধু পরিবারের নিকটাত্মীয় ছাড়াও প্রণব মুখার্জি ছিলেন একজন বাংলাদেশের একজন পরীক্ষিত ও পরীক্ষিত প্রকৃত বন্ধু। ‘

স্বাগত বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ। চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের প্রাক্তন সভাপতি এম নাসিরুল হক, মোস্তাক আহমেদ, মoinনুদ্দিন কাদেরী শওকত, জাহিদুল করিম কোচি, ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের প্রাক্তন সহ-সভাপতি আসিফ সিরাজ, প্রেসক্লাবের প্রাক্তন সাধারণ সম্পাদক মহসিন চৌধুরী, সাংবাদিক ইউনিয়ন প্রনবের বর্ণা political্য রাজনৈতিক জীবনে বক্তব্য রাখেন মুখার্জী. সাধারণ সম্পাদক এম। শামসুল ইসলাম, প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি সালাহ উদ্দিন মুহাম্মদ রেজা, কোষাধ্যক্ষ দেবদুলাল ভৌমিক প্রমুখ।

সভার শুরুতে প্রধান অতিথি ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ হোসেন এবং চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের নেতারা প্রণব মুখোপাধ্যায়ের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

আবু আজাদ / এমএআর / এমএস